বেতন ও বোনাসের দাবিতে শ্রমিক বিক্ষোভ, মহাসড়ক অবরোধ

প্রকাশ: ১১ আগস্ট ২০১৯      

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

সোনারগাঁয়ের রতনদী এলাকায় বকেয়া বেতন ও বোনাসের দাবিতে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছেন। এ সময় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন শ্রমিকরা। উত্তেজিত শ্রমিকরা মহাসড়কের চার-পাঁচটি গাড়ি ও পাশের দোকান ভাংচুর করেন। শনিবার বিকেলে ইউসান নামে এক গার্মেন্টে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে সোনারগাঁ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে গার্মেন্ট এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

শ্রমিকরা জানান, উপজেলার রতনদী এলাকায় অবস্থিত ইউসান গার্মেন্ট কারখানায় ছয়-সাতশ' শ্রমিক কাজ করে থাকেন। চার মাস ধরে তাদের বেতন বকেয়া রয়েছে। ঈদের দু'দিন আগে বকেয়া বেতন ও বোনাস দেওয়ার কথা থাকলেও মালিকপক্ষ তাদের বেতন দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে উত্তেজিত হয়ে পড়েন শ্রমিকরা। পরে শ্রমিকরা একত্রিত হয়ে পার্শ্ববর্তী ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে তা অবরোধ করে রাখেন। শ্রমিকদের অবরোধে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। শ্রমিক অবরোধের সময় উত্তেজিত শ্রমিকরা চার-পাঁচটি গাড়ির গ্লাস ও দুটি দোকান ভাংচুর করেন। খবর পেয়ে সোনারগাঁ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ঈদের আগে তাদের পাওনা পরিশোধের আশ্বাস দিয়ে উত্তেজিত শ্রমিকদের শান্ত করে।

শ্রমিক আয়েশা ও নাসিমা বেগম বলেন, চার মাস ধরে আমাদের বেতন দিচ্ছে না মালিকপক্ষ। বেতন চাইলেই 'দিই'-'দিচ্ছি' করে চার মাস অতিবাহিত করে। ঈদের আগেই চার মাসের বেতন পরিশোধ করার কথা বলে এখন বেতন দেওয়া হবে না বলে জানান তারা।

শ্রমিক আলমগীর ও শাহনাজ আক্তার বলেন, আমাদের দোকানে আর বাকি দিতে চায় না। বাসা ভাড়াও বকেয়া পড়ে আছে। ছেলেমেয়েদের স্কুলের বেতনও দিতে পারছি না। ইউসান গার্মেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আকতার হোসেন খান বলেন, আজ রোববার তাদের বেতন ও বোনাস পরিশোধ করা হবে।

ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, শ্রমিকদের সড়ক অবরোধের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলে আজ রোববার বকেয়া বেতন পরিশোধের আশ্বাস দেওয়ার পর উত্তেজিত শ্রমিকদের শান্ত করা হয়।