মানিকগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৮

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার দীঘি ইউনিয়নে ১৩ বছরের এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে গ্রাম্য সালিশে বিষয়টি মীমাংসা করতে ভুক্তভোগী পরিবারকে চাপ দেন প্রভাবশালীরা। চাপের মুখেই গতকাল শুক্রবার ভুক্তভোগী পরিবার থানায় লিখিত অভিযোগ করে।

পুলিশ, স্থানীয় এবং ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার রাত ৮টার দিকে মেয়েটি প্রকৃতির ডাকে ঘরের বাইরে বের হলে প্রতিবেশী সোহরাব মল্লিক (৪৫) তার মুখ চেপে ধরে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। এরপর মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে বাড়ির রান্নাঘরে তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়েটির বাবা তাকে খুঁজতে বের হলে এ দৃশ্য দেখতে পান।

বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে গ্রামের মাতবররা বিষয়টি মীমাংসা করে দেওয়ার কথা বলে সময় ক্ষেপণ করতে থাকেন। অবশেষে গতকাল দুপুরে ভুক্তভোগী ওই পরিবার থানায় লিখিত অভিযোগ করে।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, এ ঘটনায় থানায় মামলা করতে মাতবররা নিষেধ করেন। সালিশের দিন সন্ধ্যায় অভিযুক্ত সোহরাবের কাছ থেকে টাকা-পয়সা নিয়ে সালিশের আগে তাকে সরিয়ে দেন মাতবররা।

অভিযোগের বিষয়ে মাতবর গোলাম আলী বলেন, 'বিষয়টি গ্রামে মীমাংসা করে দেওয়ার কথা ছিল। এতে ওই কিশোরীকে বিয়ে দেওয়ার জন্য কিছু টাকা-পয়সা নিয়ে দেওয়া যেত। তবে অভিযুক্ত সোহরাব পালিয়ে যাওয়ায় সালিশে বসা হয়নি।'

দীঘি ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আবু জাফর বলেন, 'এ ধরনের অপরাধ গ্রাম্য সালিশে মীমাংসা অযোগ্য। এ ঘটনা জানার পর ভুক্তভোগী ওই পরিবারকে থানায় মামলা করতে বলা হয়।' মানিকগঞ্জ সদর থানার ওসি রকিবুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় মেয়েটির বাবা লিখিত অভিযোগ করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।