স্বরূপকাঠিতে সড়কে চলছে অবৈধ যানবাহন

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৮

স্বরূপকাঠি (পিরোজপুর) প্রতিনিধি

স্বরূপকাঠি পৌর শহরসহ গ্রামীণ সড়ক থেকে মহাসড়কে অবাধে চলাচল করছে নছিমন, করিমন, ভটভটি এবং ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান। স্বরূপকাঠি সদর থেকে ৬টি, ইন্দুরহাট থেকে ৪টি ও মিয়ারহাট থেকে ৩টি রুটে এ ধরনের দুই হাজার যানবাহন চলাচল করে। ইঞ্জিনচালিত ওইসব যানবাহনের নেই কোনো বৈধ রেজিস্ট্রেশন, চালকদের নেই ড্রাইভিং লাইসেন্স। ফলে ঘটছে সড়ক দুর্ঘনা। পাশাপাশি বাড়ছে শব্দ দূষণ।

হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও স্বরূপকাঠির সড়ক-মহাসড়কে বেপরোয়া গতিতে এসব যানবাহন দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। সাধারণ মানুষ তো বটেই, প্রশাসনের লোকজনও নিজেদের যাতায়াতের কাজে ব্যবহার করছেন এসব যান। আর এ কারণে অনেকেই জীবিকা খুঁজে পেলেও এ যান মহাসড়কে চালাতে গিয়ে প্রায়ই শিকার হচ্ছে ছোট-বড় দুর্ঘটনার। ফলে পঙ্গুত্বসহ নিহতের তালিকার সংখ্যা বাড়ছে দিন দিন। ওয়ার্কশপে শ্যালো ইঞ্জিনের সঙ্গে কাঠের তৈরি বডি জুড়ে দিয়ে তৈরি হচ্ছে নছিমন, করিমন, ভটভটি এবং ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান। এসব শ্যালো মেশিনে সেট করা যানবাহনের কালো ধোঁয়া দূষিত করছে পরিবেশ।

অন্যদিকে ভূঁইয়াবাড়ির স্ট্যান্ডসহ যেখানে-সেখানে অটোরিকশা, মোটরসাইকেল রেখে পুরো রাস্তা ব্লক করে রাখা হয়। চালকদের কোনো প্রশিক্ষণ না থাকায় প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। বিকট শব্দে হর্ন বাজানোর কারণে দিন দিন বাড়ছে হৃদরোগের ঝুঁকিসহ স্মৃতিশক্তি লোপের মতো ঘটনা। স্বরূপকাঠি পৌরসভার সঙ্গে পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও উপজেলা পরিষদ থাকা সত্ত্বেও অবাদে চলছে অবৈধ অটোরিকশা। বিকট শব্দে হর্ন বাজিয়ে এসব যান চলছে, যা দেখার যেন কেউ নেই। এ বিষয়ে অটোরিকশাচালক রহিম, রাজ্জাক, হেমায়েত বলেন, অতিরিক্ত আলোর কারণে আমাদেরও অনেক সময় সমস্যায় পড়তে হয়। আর হর্ন তো সবাই লাগায়, তাই আমরাও লাগাইছি।

সরকারি নিয়ম-নীতিকে তোয়াক্কা না করে স্কুল, কলেজ ও অফিস-আদালতের সামনে উচ্চমাত্রায় হর্ন বাজানোয় নিষেধাজ্ঞা থাকলেও সেখানে আরও জোরে হর্ন বাজিয়ে রাস্তা দাপিয়ে বেড়ায় অটোরিকশা। স্বরূপকাঠি পৌরসভার সামনে স্ট্যান্ড বানিয়ে যত্রতত্র গাড়ি রাখা হয়। একই অবস্থার সৃষ্টি করে সরকারি স্বরূপকাঠি কলেজের

দক্ষিণ দিকের স্ট্যান্ড এবং মিয়ারহাটের তরকারি বাজার পুলের পর মোল্লাবাড়ি এলাকায়। স্বরূপকাঠিবাসী এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ চায়।

ওসি কেএম তারিকুল ইসলাম বলেন, এ থানায় যোগদানের পর থেকে এসব যান নিয়ন্ত্রণের জন্য চেষ্টা করছি। তবে অচিরেই এ সমস্যার সমাধান করা হবে।