গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

সাত বছরেও চালু হয়নি নতুন অ্যাম্বুলেন্স

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৮

মেহেরপুর প্রতিনিধি

চিকিৎসকের সংকট ও আধুনিক চিকিৎসাসেবা না পাওয়ার কারণে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রতিদিন মুমূর্ষু রোগীরা চিকিৎসা নিতে ছুটে যান অন্যান্য হাসপাতালে। উপযুক্ত চিকিৎসাসেবা না পাওয়ায় রোগীরা হাসপাতাল ছেড়ে বিভিন্ন ক্লিনিক ও জেলার বাইরে গিয়ে চিকিৎসা নিতে বাধ্য হচ্ছেন। ফলে রোগী পরিবহনে প্রতিদিন দরকার হচ্ছে অ্যাম্বুলেন্স। বর্তমানে একটি পুরনো অ্যাম্বুলেন্স চলাচল করলেও পড়ে আছে সরকারের বরাদ্দকৃত নতুন অ্যাম্বুলেন্সটি। রেজিস্ট্রেশনের অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নতুন অ্যাম্বুলেন্সটি চালু করা সম্ভব হয়নি সাত বছরেও। হাসপাতালের গ্যারেজে পড়ে থেকে অ্যাম্বুলেন্সের বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ও ব্যাটারি অকেজো হতে বসেছে।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, গাংনী উপজেলার প্রায় সাড়ে ছয় লাখ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা দেয় গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। ইনডোর ও আউটডোরে প্রতিদিন অন্তত ৪৫০ থেকে ৫০০ রোগী চিকিৎসা নেন। মুমূর্ষু রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রায় প্রতিদিনই কুষ্টিয়া, রাজশাহী ও ঢাকায় যেতে অ্যাম্বলেন্স দরকার হচ্ছে। একটি মাত্র ভাঙাচোরা অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে রোগী পরিবহন কোনো ক্রমেই যথেষ্ট নয়। ফলে রোগীরা বাধ্য হচ্ছেন কোনো বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিক থেকে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করতে।

গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্স চালক আবদুল মালেক বলেন, নতুন অ্যাম্বুলেন্সটির রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন না হওয়ায় চালানো যাচ্ছে না। গ্যারেজে পড়ে থেকে এর ব্যাটারি ও যন্ত্রপাতি বিকল হতে চলেছে।

গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, রেজিস্ট্রেশনবিহীন অ্যাম্বুলেন্স সড়কে নামিয়ে কোনো সমস্যা হলে কেউ দায় নেবে না। তাই রেজিস্ট্রেশনের অর্থপ্রাপ্তির অপেক্ষায় আছি।