দেশের বিভিন্ন স্থানে হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের প্রতিবাদ ও সংগঠনের নেতৃত্বের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে পদত্যাগ করেছেন সংগঠনের নায়েবে আমির বাংলাদেশ ফরায়েজী আন্দোলনের সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান। গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেন তিনি।

সংগঠনের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ওঠা বিভিন্ন অভিযোগসহ নানা কারণ দেখিয়ে বাহাদুরপুরের পীর সাহেব আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান বলেন, হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা শায়খুল ইসলাম শাহ আহমদ শফীর মতো মহান নেতৃত্বের শূন্যতা অনুভব করছি। তার মৃত্যুর পর হেফাজতে ইসলামে যোগ্য নেতৃত্বের সংকট সৃষ্টি হয়েছে। নিজেদের মধ্যে গ্রুপিং ও দলাদলি সৃষ্টি হয়েছে। ভিন্ন দল ও ভিন্ন মতাদর্শের মানুষ অনুপ্রবেশ করেছে এবং তারাই তাদের রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করতে হেফাজতে ইসলামকে অত্যন্ত সুকৌশলে মাঠে নামানোর চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, ওই বিতর্কিত বহিরাগত সংগঠনের লোকজনই হেফাজতে ইসলামের নেতাদের অধিকাংশের মতামত উপেক্ষা করে হরতালের মতো জনভোগান্তিকর কর্মসূচি পালনে বাধ্য করেছে।

ফরায়েজী আন্দোলনের সভাপতি বলেন, হেফাজতে ইসলাম এখন কিছু ব্যক্তির নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নের একটি প্ল্যাটফর্ম হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়গুলো বিবেচনা করে সংগঠনের নায়েবে আমির পদ থেকে ইস্তফা দিলাম। আমার এই পদত্যাগ ইসলাম, দেশ ও জাতির অধিকতর কল্যাণের লক্ষ্যে।

আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি একটি সমষ্টিগত অর্জন। স্বাধীনতার সুবিধা এবং স্বাধীনতার আবেগ, অনুভূতি, উচ্ছ্বাস প্রকাশ করার অধিকার সব নাগরিকের রয়েছে। কিন্তু স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনকে কেন্দ্র করে আগে ও পরের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। বিগত কয়েকদিন হাটহাজারী, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ বিভিন্ন অঞ্চলে ২০ জন নিহত ও অসংখ্য আহত হওয়ায় আমি ব্যথিত। এ সময় তিনি সরকারসহ সবাইকে নিহতদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানো এবং আহতদের সুচিকিৎসার ব্যবস্থার আহ্বান জানান। একই সঙ্গে কওমি মাদ্রাসাগুলো খুলে দেওয়ার পাশাপাশি 'নিরীহ আলেম ওলামাদের' হয়রানি না করার আহ্বান জানান।

হাজী শরীয়তউল্লাহ (রহ.) সপ্তম পুরুষ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ হাসান বলেন, এখন থেকে তার সংগঠন বাংলাদেশ ফরায়েজী আন্দোলন স্বাধীন-সার্বভৌম রক্ষার্থে ইসলাম ও দেশ-জাতির কল্যাণে এককভাবে প্রয়োজনীয় সব কর্মসূচি গুরুত্বসহকারে পালন করবে। হেফাজতে ইসলামের কোনো ধরনের কর্মকাণ্ডের দায় তিনি ও তার দলের ওপর বর্তাবে না।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের মহাসচিব আব্দুর রহমান খান ফরায়েজী, সহসভাপতি আব্দুল বাতেন, যুগ্ম সম্পাদক নুরুল ইসলাম, মাওলানা হানজালা, মাওলানা তোহা, ফজলুল করিম, হাজি মো. মিজানুর রহমান, আতাউর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন