করাচিতে বিমান বিধ্বস্ত নিহত কমপক্ষে ৬০

প্রকাশ: ২৩ মে ২০২০

সমকাল ডেস্ক

করাচিতে বিমান বিধ্বস্ত নিহত কমপক্ষে ৬০

শুক্রবার পাকিস্তানের করাচিতে একটি আবাসিক এলাকায় বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পর উদ্ধার তৎপরতা- এএফপি

পাকিস্তানের করাচিতে শুক্রবার বিকেলে অন্তত ৯৮ আরোহী নিয়ে বিমান বিধ্বস্ত হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতের নির্দিষ্ট সংখ্যা সংশ্নিষ্টরা জানাতে না পারলেও কয়েক ঘণ্টা পর রাতেই অন্তত ৬০ জনের প্রাণহানির বিষয়টি নিশ্চিত করেন সিন্ধুর স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। নিহতরা সবাই বিমানের আরোহী, নাকি এর মধ্যে দুর্ঘটনাকবলিত এলাকার লোকজনও আছেন, সেটি নিশ্চিত করতে পারেননি তারা। নিহতের এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ দুর্ঘটনায় প্রাথমিকভাবে বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হয়েছিল। খবর ডন ও বিবিসির।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে পাকিস্তানও উড়োজাহাজ চলাচল স্থগিত করেছিল। কয়েকদিন আগে বাণিজ্যিক ফ্লাইটের ক্ষেত্রে সেই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়। এরই মধ্যে ঘটল ভয়াবহ এই দুর্ঘটনা। গতকালের ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের (পিআইএ) এ-৩২০ এয়ার বাসটি করাচিতে জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অদূরে আবাসিক এলাকায় বিধ্বস্ত হয়। অর্থাৎ এটি অবতরণের কিছুক্ষণ আগেই দুর্ঘটনার শিকার হয়। পিআইএর মুখপাত্র আবদুল্লাহ হাফিজ দুর্ঘটনার খবর নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, উড়োজাহাজে ৯০ যাত্রী ও ৮ ক্রু ছিলেন। এটি লাহোর থেকে করাচি যাচ্ছিল। মুখপাত্র আরও জানান, দুর্ঘটনার বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে বিস্তারিত জানা যায়নি। দুর্ঘটনার পরপরই উদ্ধার অভিযান শুরু হয়। এদিকে বিমানে আরোহী আরও বেশি ছিলেন বলে দাবি করেন দেশটির বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র আবদুল সাত্তার। তিনি জানান, উড়োজাহাজে ৯৯ যাত্রী ও ৮ ক্রু ছিলেন বলে প্রাথমিকভাবে তারা জেনেছেন।

পিআইএর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এয়ার মার্শাল আরশাদ মালিক জানান, দুর্ঘটনার আগে পাইলট কন্ট্রোল রুমকে প্রযুক্তিগত সমস্যার কথা বলেছিলেন এবং দুটি রানওয়ে অবতরণের জন্য প্রস্তুত থাকা সত্ত্বেও তিনি অবতরণের পরিবর্তে ঘুরে বেড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন। এ ছাড়া একজন পাইলটের কাছ থেকে ইঞ্জিন বিকল হওয়ার কথা শোনা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুর্ঘটনায় পতিত হওয়ার আগে উড়োজাহাজটি দু-তিন দফা অবতরণের চেষ্টা করেছিল। সেই চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে এটি প্রথমে একটি মোবাইল ফোনের টাওয়ারে আঘাত হানে এবং বাড়িঘরের ওপরে আছড়ে পড়ে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আসা ভিডিও ও ছবিতে দেখা যায়, ওই আবাসিক এলাকার ওপর দিয়ে কালো ধোঁয়া উড়ছে। রাস্তায় ছুটে যাচ্ছে অ্যাম্বুলেন্স। জনবহুল এলাকায় বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ায় হতাহত বেশি হওয়ার শঙ্কা করেন কেউ কেউ।