প্রকৃতি

শরতের ফুল দুপুরমণি

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

মোকারম হোসেন

শরতের ফুল দুপুরমণি

ফুটেছে দৃষ্টিনন্দন দুপুরমণি- লেখক

দুপুরে ফোটে বলেই কি এমন নাম! হয়তো বা। যেমন সন্ধ্যামণি বা সন্ধ্যামালতি। আবার পর্টুলেকা ফুলকেও সময়ের নির্দিষ্টতার জন্য টাইম ফুল বলা হয়। তবে প্রথমোক্ত ফুলের চেয়ে তুলনামূলকভাবে দুপুরমণি খুব কম দেখা যায়। প্রচলিত অন্যান্য নাম দুপুরচণ্ডি, বান্ধুলি, বান্ধুক ইত্যাদি। একসময় গৃহস্থের ঘরের আঙিনায়ও মৌসুমে দু-চারটি গাছ দেখা যেত। সেই ধারাবাহিকতা কবেই যেন হারিয়ে গেছে। এ কারণে ধীরে ধীরে আমাদের কাছে অপরিচিত হয়ে উঠছে ফুলটি। আজকাল শুধু রীতিবদ্ধ ফুলের বাগানেই দেখা মেলে। মৌসুমি ফুলের বাগানসজ্জায় এদের উজ্জ্বল রঙ আদর্শ শ্রেণির। তা ছাড়া শরতের সংক্ষিপ্ত পুষ্পতালিকায়ও দুপুরমণির অনেক কদর। ঢাকায় রমনা পার্ক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের বাগান ও শিশু একাডেমির বাগানসহ উল্লেখযোগ্য বাগানগুলোতে চোখে পড়ে।

দুপুরমণি (Pentapetes phoenicea) বর্ষজীবী ধরনের গাছ। ফুল ফোটার মৌসুম বর্ষা-শরৎ। সাধারণত অন্য কোনো মৌসুমে ফুল দেখার সুযোগ নেই। গাছ এক থেকে দেড় মিটার পর্যন্ত উঁচু, রুক্ষ ও রোমশ হতে পারে। পাতা লম্বা, কিনারা খাঁজকাটা। ফুল ফোটে পাতার কক্ষে, প্রায় দুই সেমি চওড়া, পাপড়ি সংখ্যা ৫, মুক্ত, সিঁদুরেলাল, দৈবাৎ সাদাও হতে পারে, তবে গন্ধহীন। বর্ষার প্রথমভাগে বেড তৈরি করা হয়, ফুল ফোটে শেষভাগ থেকে শরৎ অবধি। ফল ডিম্বাকার, গা রোমশ, বিদারী। সাধারণত বীজেই চাষ। জন্মস্থান দক্ষিণ এশিয়া, ভারত ও অস্ট্রেলিয়া।