মোবাইল অ্যাপেই দেওয়া যাবে ভাড়াটিয়া তথ্য

'সিআইএমএস ডিএমপি' অ্যাপ উদ্বোধন

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

রাজধানীর বাড়ির মালিক, ভাড়াটিয়া ও মেস সদস্যদের তথ্য নিবন্ধন আরও সহজ করল ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। এখন থেকে ঘরে বসে হাতে থাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমেই ভাড়াটিয়া তথ্য ফরম পূরণ করে জমা দেওয়া যাবে। এ জন্য গতকাল সোমবার সিটিজেন ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের (সিআইএমএস) মোবাইল অ্যাপ চালু করা হয়েছে। গুগল প্লে স্টোরে সার্চ দিয়ে ডাউনলোড করা যাবে 'সিআইএমএস ডিএমপি' নামের সেই অ্যাপ। গতকাল ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে ওই অ্যাপের উদ্বোধন করে ঢাকা মহানগর পুলিশের বিদায়ী কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ২০১৬ সাল থেকে ঢাকায় নাগরিক তথ্য সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু হয়। সিটিজেন ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম বা সিআইএমএস তথ্যভাণ্ডারে বর্তমানে ৭২ লাখের বেশি নাগরিকের তথ্য রয়েছে। এতে অপরাধ যেমন কমেছে, তেমনি মামলার রহস্য উদ্‌ঘাটন ও আসামি গ্রেফতার সহজ হয়েছে। এ তথ্য দিয়ে ভাড়াটিয়া ও বাড়ির মালিক নিরাপদ হয়েছেন।

পুলিশ কমিশনার বলেন, আগে বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়া নাগরিকরা পুলিশের কাছ থেকে ফরম নিয়ে তথ্য পূরণ করে তা থানায় জমা দিতেন বা পুলিশ সেই ফরম সংগ্রহ করত। কিন্তু এখন ঘরে বসে মোবাইল ফোনের অ্যাপসেই পাওয়া যাবে সেই ফরম। তা মোবাইল ফোনেই পূরণ করে জমা দেওয়া যাবে। এতে উভয়ের সময় বাঁচবে। তবে আগের পদ্ধতিও বহাল থাকবে। তিনি বলেন, সিআইএমএস পদ্ধতি চালুর পর ঢাকায় কোনো বড় জঙ্গি আস্তানা গড়ে উঠতে পারেনি। চুরি, ডাকাতি, ছিনতাইসহ সাধারণ অপরাধও কমেছে।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, সোমবার থেকে গুগল প্লে স্টোরে সিআইএমএস অ্যাপ পাওয়া গেলেও কিছুদিনের মধ্যে পাওয়া যাবে অ্যাপল স্টোরেও। ইন্টারনেট সংযোগ থাকা মোবাইল ফোন দিয়ে অ্যাপসটি ডাউনলোড করে লগিং অপশনে নিজের ফোন নম্বর দিয়ে ক্লিক করতে হবে নিবন্ধনে। এরপর একটি ভেরিফিকেশন কোড পাওয়া যাবে ওই মোবাইলে। কোডটি অ্যাকটিভ করে পাসওয়ার্ড সেট করে লগিং করলে দেখা যাবে বিভিন্ন ক্যাটাগরি। এখান থেকে নিজের পছন্দের অপশনটিতে ক্লিক করলে একটি ফরম পাওয়া যাবে। এতে প্রদত্ত ঘরে নাগরিকের সব তথ্য নির্ভুলভাবে পূরণ করে সাবমিট করলে শেষ হবে কাজ। নাগরিকের পূরণ করা তথ্য সেন্ট্রাল ডাটাবেজে যুক্ত হওয়ার আগে সংশ্নিষ্ট থানার ওসি তা যাচাই-বাছাই করে সঠিক থাকলে অ্যাপ্রুভাল দিয়ে সিআইএমএসের মূল ডাটাবেজে নাগরিকের তথ্য যুক্ত করবেন। কোনো কারণে নাগরিকের ফরম পূরণ অসম্পূর্ণ বা তথ্যে ভুল থাকে সে ক্ষেত্রে মোবাইল ফোন বা প্রদত্ত ই-মেইলে তা এসএমএস দিয়ে জানানো হবে।

ডিএমপি কর্মকর্তারা এও বলেছেন, নাগরিক তথ্য ফরম পূরণ করলে বাড়ির মালিকদের অনেক সুবিধা রয়েছে। এতে কোনো অপরাধী ওই বাড়িতে অবস্থান করতে পারবে না। শুধু অপরাধীরাই ফরম পূরণে গড়িমসি করবে। কোনো অপরাধী সব তথ্য লিখিতভাবে পুলিশের কাছে জমা দিয়ে অপরাধ করতে সাহস করবে না। বাড়ির মালিকের সঙ্গে বিট অফিসারের ব্যক্তিগত যোগাযোগ থাকায় সহজে আইনগত সহযোগিতাও পাওয়া যায়। তা ছাড়া বাড়ির মালিক থানায় তার ভাড়াটিয়া ফরম জমা দিলে কোনো অপরাধীর সংঘটিত অপরাধের দায় তার ওপর বর্তায় না। নিবন্ধনে ভাড়াটিয়াদেরও রয়েছে নানা সুবিধা। কোনো শত্রুপক্ষ যে কোনো থানায় মিথ্যা মামলা করলে নিবন্ধনের কারণে ওই ভাড়াটিয়ার অবস্থান নিশ্চিত হওয়ায় মামলাটি মিথ্যা প্রমাণ করা যায়।