লন্ডন থেকে ফিরেছেন রাষ্ট্রপতি

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বাসস

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ লন্ডনে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চোখের চিকিৎসা শেষে গতকাল সোমবার সকালে দেশে ফিরেছেন। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে সকালে রাষ্ট্রপতি ও তার সফরসঙ্গীরা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ. ক. ম. মোজাম্মেল হক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, কূটনৈতিক কোরের ভারপ্রাপ্ত ডিন, ঢাকায় নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত ডেভরিম ওজতুর্ক, বাংলাদেশে ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারটন ডিকসন, তিন বাহিনীর প্রধানগণ, পুলিশের আইজি, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার), পররাষ্ট্র সচিব (মেরিটাইম) এবং সংশ্নিষ্ট উচ্চপদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা রাষ্ট্রপতিকে বিমানবন্দরে স্বাগত জানান। গত ৩১ আগস্ট রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন। ৭৫ বছর বয়সী রাষ্ট্রপতি দীর্ঘদিন ধরে গ্লুকোমায় ভুগছেন।

কেনিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ :রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ কেনিয়ায় বাংলাদেশের  নবনিযুক্ত হাইকমিশনার মেজর জেনারেল জাহাঙ্গীর কবির তালুকদারকে কেনিয়া ও এর আশপাশের দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্ভাবনাময় খাতগুলো অনুসন্ধান করার নির্দেশনা দিয়েছেন।

কেনিয়ায় বাংলাদেশের নবনিযুক্ত হাইকমিশনার গতকাল দুপুরে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে এলে তিনি এ নির্দেশনা দেন। রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদিন বলেন, বৈঠককালে রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ ও কেনিয়া উভয় দেশের ব্যাপক সম্ভাবনাময় খাত রয়েছে বলে উল্লেখ করেন। রাষ্ট্রপতি দু'দেশের স্বার্থে সম্ভাবনাময় খাতগুলো যৌথভাবে ব্যবহার করার নির্দেশনা দেন।

এ সময় হাইকমিশনারও তার দায়িত্ব পালনকালে রাষ্ট্রপতির সহযোগিতা চান। বৈঠকে রাষ্ট্রপতির সংশ্নিষ্ট সচিবগণ উপস্থিত ছিলেন।