নিখোঁজের এক ঘণ্টা পর রক্তাক্ত হয়ে ফিরল শিশুটি

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

সাত বছরের শিশুটি মায়ের কাছে চটপটি খাওয়ার বায়না ধরেছিল। মা তাকে চটপটির দোকানে বসিয়ে রেখে বাসায় যান টাকা আনতে। দোকানে ফিরে আর মেয়েকে খুঁজে পাননি। ঘণ্টাখানেক পর শিশুটি রক্তাক্ত অবস্থায় বেরিয়ে আসে। পরে তার মাকে জানায়, প্রতিবেশী এক যুবক তাকে বাসায় নিয়ে গিয়েছিল। ওই শিশুটি স্থানীয় একটি স্কুলে প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। গতকাল সোমবার বিকেলের ওই ঘটনার পর তাকে রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে এ ঘটনা ঘটেছে।

শিশুটির মা জানান, বিকেলে তিনি মেয়েকে নিয়ে ঘুরতে বের হন। মেয়ে চটপটির দোকান দেখে তা খেতে চায়। কিন্তু তার কাছে টাকা না থাকায় মেয়েকে দোকানে বসিয়ে বাসায় টাকা আনতে যান। ফিরে মেয়েকে খুঁজে পাননি। চটপটির দোকানিসহ কেউ কিছু জানাতেও পারেনি। কিছুক্ষণ পর তার মেয়ে ওই এলাকার একটি গলি থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় কাঁদতে কাঁদতে বের হয়। এরপর স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় তিনি থানায় যান। তিনি বলেন, যে ছেলেটা তার মেয়েকে ধর্ষণ করেছে সে ঝালমুড়ি বিক্রি করে। বাসাও একই এলাকায়। বাসায় নিয়ে চটপটি খেতে দেবে বলে তার মেয়েকে ফুসলিয়ে নিয়ে যায় সে।

রাত ৮টার দিকে শাপলা আক্তার নামে কামরাঙ্গীরচর থানার একজন নারী এএসআই শিশুটিকে নিয়ে হাসপাতালে যান। তিনি জানান, ছোট্ট মেয়েটিকে তারাও রক্তাক্ত অবস্থায় পান। প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলামত পেয়ে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

কামরাঙ্গীরচর থানার এসআই এমদাদ হোসেন জানান, পুলিশ শিশুটির পরিবারের সঙ্গে কথা বলে ধর্ষককে শনাক্তের চেষ্টা চলছে।