সংসদে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী

পারমাণবিক বিদ্যুতে বাংলাদেশ নতুন বলে ব্যয় বেশি

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

বাংলাদেশ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে নতুন। অন্যদিকে ভারত ৫০ বছরের অধিক সময় ধরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিচালনা, ব্যবস্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণ করছে। যে কারণে তাদের তামিলনাড়ুর কুদনকুলাম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের অবকাঠামো ব্যয় তুলনামূলকভাবে কম। নতুন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের ব্যয় কিছুটা বেশি। বিএনপির সাংসদ রুমিন ফারহানার প্রশ্নের জবাবে গতকাল রোববার সংসদের বৈঠকে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান এসব কথা বলেন। এর আগে বিকেল ৫টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের বৈঠক শুরু হলে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।

রুমিন ফারহানা তার প্রশ্নে বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে প্রতি মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য মূলধন ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ লাখ ডলার। একই ধরনের প্রকল্প ভারতের তামিলনাড়ুর কুদনকুলাম। সেখানে প্রতি মেগাওয়াট বিদ্যুতের খরচ ৩০ লাখ ডলার। অর্থাৎ রূপপুরে মূলধন ব্যয় বেশি হচ্ছে প্রায় ৪৫ হাজার কোটি টাকা। এই বিপুল ব্যয়ের কারণ কী? জবাবে মন্ত্রী বলেন, ভারতের অবকাঠামো নির্মাণে ব্যয় অনেক কম। এ ক্ষেত্রে নতুন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের ব্যয় বেশি। এ ছাড়া কুদনকুলামে প্রকল্প ব্যবস্থাপনা, জনবল প্রশিক্ষণ, নির্মাণকাজ, লাইসেন্সিং ব্যবস্থাপনা কাজে ভারত সরাসরি অংশগ্রহণ করেছে। যে কারণে তাদের ব্যয় অনেকাংশে কম হয়েছে। তবে বাংলাদেশের এই ব্যয় মিসর, হাঙ্গেরি, উজবেকিস্তানের পারমাণবিক কেন্দ্রের তুলনায় কম।