সল্ফ্ভ্রমের মূল্য ৩৮ হাজার টাকা!

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার কসবা ইউনিয়নে ধর্ষণের শিকার এক প্রতিবন্ধী কিশোরীর সল্ফ্ভ্রমের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৮ হাজার টাকা। গত শুক্রবার সকালে স্থানীয় ইউপি সদস্য আয়েস আলী সালিশ ডেকে ধর্ষণে অভিযুক্ত জুয়েল আহম্মেদকে এই টাকা জরিমানা করেন। একই সঙ্গে ভুক্তভোগী কিশোরী ও তার পরিবারকে মামলা না করতে হুমকি দেওয়া হয়। বিষয়টি সাংবাদিকরা জানার পর স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী নুরুল ইসলাম বাবু শনিবার রাতে নারী ও শিশু নির্যাতনের অভিযোগে নাচোল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলায় ওই ইউনিয়নের খড়িবোনা-বেলেপুকুরপাড়ার জুয়েল আহম্মেদ, তার বাবা বিরু মিস্ত্রী ও ভাই মামুন, ইউপি সদস্য আয়েস আলী এবং ভুক্তভোগী কিশোরীর চাচাসহ অজ্ঞাতপরিচয় ২৫ জনকে আসামি করা হয়েছে। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে কসবা ইউনিয়নের কালইর রেললাইনপাড়ার ওই প্রতিবন্ধী কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করে জুয়েল আহম্মেদ। বিষয়টি জানতে পেরে ওই রাতে স্থানীয় গ্রাম পুলিশ অভিযুক্ত জুয়েল ও ভুক্তভোগী  কিশোরীকে ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে চৌকিদারদের পাহারায় রাতভর আটক করে রাখে। পরদিন শুক্রবার তাদেরকে স্থানীয় চেয়ারম্যানের বাড়ি নিয়ে গেলে চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান বিষয়টি সালিশযোগ্য নয় বলে জানান এবং নাচোল থানায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু ইউপি সদস্য আয়েস আলী বিষয়টি নিয়ে হাটখোলা বাজারে সালিশ বসান এবং অভিযুক্ত জুয়েলকে ৩৮ হাজার টাকা জরিমানা করে সেই টাকা ওই কিশোরীর চাচার কাছে দেন।

বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিকরা শনিবার জানতে পেরে কিশোরীর বাড়িতে গেলে তার স্বজনসহ প্রতিবেশীরাও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। সাংবাদিকরা ঘটনা সম্পর্কে জানার পর অভিযুক্ত জুয়েল ও সালিশকারীর পক্ষ থেকে কিশোরী এবং তার পরিবারকে মামলা না করতে হুমকি ও ভয় দেখানো হয়। পরে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী মামলা করেন।

নাচোল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মিন্টু রহমান জানান, এ ঘটনায় নাচোল থানা পুলিশ ভুক্তভোগী কিশোরীর চাচা ও ধর্ষণে অভিযুক্ত জুয়েলের ভাই মামুনকে গ্রেফতার করেছে। গতকাল রোববার কিশোরীর শারীরিক পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।