লিডিং বিশ্ববিদ্যালয়ে ইয়ুথ মিটিং

সহনশীলতা বাড়ানো নিয়ে মতামত দিলেন তরুণরা

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সিলেটের লিডিং ইউনিভার্সিটির ডিবেট ক্লাব ও সোশ্যাল কালচারাল ক্লাবের আয়োজনে সম্প্রতি 'সবাই ভিন্ন একসাথে অনন্য' প্রচারে ইয়ুথ মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এ অনুষ্ঠানে অংশ নেন তরুণ-তরুণীরা।

এতে উগ্রবাদ ও সহিংসতা হ্রাসে তরুণদের মধ্যে সহনশীলতা বাড়াতে ধর্মীয় সম্প্রীতি, তারুণ্যের শক্তি ও সর্বজনীন বাংলাদেশ বিষয়ে তিনটি ভিডিও দেখানো হয়। এরপর করণীয় সম্পর্কে উন্মুক্ত আলোচনার মাধ্যমে তাদের মতামত জানতে চাওয়া হয়। এতে তরুণ-তরুণীরা স্বতঃস্ম্ফূর্তভাবে তাদের মতামত দেন। এ ছাড়া প্রচারের বিভিন্ন কার্যক্রম, যেমন ধর্মীয় সম্প্রীতি, তারুণ্যের শক্তি এবং সর্বজনীন বাংলাদেশ বিষয়ে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য গল্প সংগ্রহ, এফএম রেডিওতে দূর্বার তারুণ্য ও সহজ মানুষ নামে দুটি অনুষ্ঠান এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এই প্রচারের কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা করা হয়। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন এ. কে. এম. শওকাত ইসলাম পার্নেল এবং মডারেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সাইদুল হক তানজীব।

মডারেটর সাইদুল হক তানজীব বলেন, 'দেশজুড়ে ইয়ুথ মিটিংয়ের মাধ্যমে আমরা ধর্মীয় সম্প্রীতি, সর্বজনীন বাংলাদেশ, তারুণ্যের শক্তি সম্পর্কে তরুণদের চিন্তাধারা জানতে পারছি। আমাদের আলোচনার অন্যতম মূল লক্ষ্য হলো, সহিষুষ্ণতা চর্চার মাধ্যমে উগ্রবাদ এবং সহিংসতা থেকে তরুণ সমাজকে দূরে রাখা।'

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন শামসুল আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. রাকিব উদ্দিন এবং কলা ও ভাষা অনুষদের ডিন নাসির উদ্দিন আহমেদ। বিশেষজ্ঞ আলোচক ছিলেন ইংরেজি বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক রেজাউল করিম। আরও উপস্থিত ছিলেন টিভি অভিনেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া। অনুষ্ঠান শেষে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সনদপত্র বিতরণ করা হয়।

উগ্রবাদ, সহিংসতা ও নিরাপত্তাহীনতার ঝুঁকি হ্রাসের লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা ইউএসএইড 'অবিরোধ :রোড টু টলারেন্স' প্রকল্পের আওতায় তরুণ প্রজন্মকে সচেতন করতে কাজ করে যাচ্ছে। 'সবাই ভিন্ন একসাথে অনন্য' প্রচারটি সেই প্রকল্পেরই অংশ। প্রচারটির গণমাধ্যম সহযোগী হিসেবে আছে এনটিভি, সমকাল ও রেডিও ফুর্তি। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।