মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংস করতেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশ: ২১ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মূল উদ্দেশ্য ছিল মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করা। এ জন্যই বঙ্গবন্ধুর হত্যার কুশীলবরা স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াত-রাজাকারদের পুনর্বাসন করে; বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের পুরস্কৃত করে। এসব কিছুর পেছনে মদদ ছিল জিয়াউর রহমানের। তার স্ত্রী খালেদা জিয়া রাজাকারদের মন্ত্রিত্ব দিয়েছেন।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) অডিটরিয়ামে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে এসব কথা বলেন ড. আব্দুর রাজ্জাক। কৃষি মন্ত্রণালয় ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এ আয়োজন করে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মীর নুরুল

আলমের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন কৃষিবিদ আবদুল মান্নান এমপি, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব নাসিরুজ্জামান, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ইমেরিটাস প্রফেসর ড. আবদুস সাত্তার মণ্ডল, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আরিফুর রহমান অপু প্রমুখ।

ড. রাজ্জাক বলেন, আগস্ট হচ্ছে বাংলার আকাশ-বাতাস নিসর্গ প্রকৃতির অশ্রুসিক্ত হওয়ার মাস। বঙ্গবন্ধুর উন্নত চিন্তা দেশের নির্দেশনা হয়ে থাকবে অনন্তকাল। তিনি স্বাধীনতা-উত্তর যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে সুন্দরভাবে গড়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। এর ধারাবাহিকতায় '৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু দেশের উন্নয়নে দ্বিতীয় বিপ্লব শুরু করেন। কৃষি ব্যবস্থায় সংস্কার আনতে শুরু করেন। তার কন্যা শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনায় যে সাফল্য দেখিয়েছেন, তা বিশ্বের কাছে প্রশংসিত হয়েছে। তারই নেতৃত্বে 'আমার গ্রাম আমার শহর' হতে চলেছে। এ জন্য শহরের সব সুযোগ-সুবিধা গ্রামে নিয়ে যেতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, কৃষিবিদদের মূল দায়িত্ব বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নের জন্য একাগ্রতা, নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে কাজ করা। সবার দায়িত্ব হবে কৃষিকে বাণিজ্যিকীকরণ ও যান্ত্রিকীকরণ করা। কৃষির আধুনিকায়ন ও যান্ত্রিকীকরণ করা সরকারের চ্যালেঞ্জ। রফতানি বাড়ানো ও প্রক্রিয়াজাতকরণের জন্যও সর্বাত্মকভাবে কাজ করতে হবে। শোক দিবসের আলোচনা তখনই সফল হবে, যখন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুসারে তার দেখানো পথে চলতে পারব।