সাঁথিয়ায় শিক্ষা অফিসের কেরানির ঘুষ গ্রহণের ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশ: ২১ আগস্ট ২০১৯      

পাবনা অফিস

পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের প্রধান করণিক (উচ্চমান সহকারী) গোলজার হোসেনের বিরুদ্ধ ঘুষ গ্রহণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। তার বিরুদ্ধে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্লিপ বরাদ্দ, মেরামত বাবদ অনুদান, ওয়াশ ব্লক ও রুটিন মেইনটেন্যান্স বাবদ বরাদ্দকৃত অর্থের ৬ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে।

আলাউল হোসেন ও আরিফুল ইসলাম নামসহ কয়েকটি ফেসবুক আইডিতে সোমবার রাত থেকে ঘুষ গ্রহণের একটি ভিডিও পোস্ট করা হয়। ভিডিওতে দেখা যায়, গোলজার হোসেনকে কাজীপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুজ্জামান মনি ঘুষের টাকা প্রদান করছেন। তিনি টাকা টেবিলের নিচে নিয়ে গুনে তা প্যান্টের পকেটে রাখছেন। ভিডিওটি অনেকেই শেয়ার ও লাইক দিয়েছেন। এর কমেন্ট অংশে অনেকেই মন্তব্য করেছেন।

উপজেলার সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রধান শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মর্জিনা খাতুনের নির্দেশে গোলজার হোসেন ঘুষ নিচ্ছেন। কয়েকজন উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা সমকালকে জানান, ১৭৮টি বিদ্যালয়ের মধ্যে ১৭৫টি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে জোরপূর্বক বিল তৈরি বাবদ উচ্চমান সহকারীর মাধ্যমে বরাদ্দের ৮ থেকে ১০ ভাগ টাকা ঘুষ গ্রহণ করা হয়েছে। শিক্ষকরা জানান, সরকার প্রদত্ত স্কুলের উন্নয়ন কাজের বিল গ্রহণে অগ্রিম ঘুষ প্রদানে আমাদের বাধ্য করা হচ্ছে। ঘুষের টাকা পরিশোধ না করলে হয়রানির শিকার হতে হয়।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে গোলজার হোসেন বলেন, ঘুষের টাকা তিনি গ্রহণ করেননি। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে ফাঁসানোর চেষ্টা হচ্ছে।

ফোনে যোগাযোগ করা হলে মর্জিনা খাতুন জানান, গোলজার হোসেনের ঘুষ গ্রহণের তথ্য আমি পেয়েছি। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তবে তার নির্দেশে ঘুষ গ্রহণে সত্যতা তিনি অস্বীকার করেন।