বাবার আদর পেতে খুব ইচ্ছে করে

নেওয়াজুল হক সিকদার নিহত রতন সিকদারের ছেলে

প্রকাশ: ২১ আগস্ট ২০১৯      

যে বয়সে বাবার বুকভরা আদর-সোহাগ পাওয়ার কথা, সেই বয়সে বাবা চলে গেলেন না ফেরার দেশে, ঘাতকদের বোমার আঘাতে। আমরা দুই ভাইবোনই এখন মায়ের স্বপ্ন, পথচলা। এখন বড় হয়েছি। কিন্তু আর দশজনের মতো বাবার আদর পেতে খুব ইচ্ছে করে। বাবার কথা মনে করে দুই ভাইবোন আজও নীরবে চোখের জল ফেলি। মায়ের মনেও কষ্ট। অল্প বয়সে বিধবা হয়ে গেলেন।

আমরা আওয়ামী পরিবারের সন্তান। সেদিন জননেত্রী শেখ হাসিনার ডাকে সাড়া দিয়ে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে

গিয়ে গ্রেনেড হামলায় নিহত

হন তিনি।

আমরা দুই ভাইবোন মাকে নিয়ে মামাবাড়িতে বেশ ভালোই আছি। বাবা মারা যাওয়ার পর মামারাই আমাদের দেখভাল করছেন। আমি এইচএসসি পাস করে একটি চাকরি করছি। ছোট বোন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছে। পড়ালেখার জন্য আমরা প্রতি মাসে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দুই হাজার করে টাকা পাচ্ছি। এককালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের সহায়তার জন্য মায়ের কাছে ১০ লাখ টাকা দিয়েছেন। মায়ের চিকিৎসার জন্যও সরকারিভাবে টাকা পাচ্ছি। বলতে গেলে ভালোই আছি। তবে একটাই কষ্ট- বাবার আদর থেকে বঞ্চিত হওয়া। আরেকটি বিষয় হলো, বাবার হত্যাকারীদের ফাঁসি দেখে যাওয়া।