ঈদে বাড়ি ফেরা

সদরঘাটে যাত্রী আছে, ভিড় নেই

লঞ্চে ঈদযাত্রা

প্রকাশ: ১১ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

সদরঘাটে যাত্রী আছে, ভিড় নেই

প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে বাড়ি ছুটছে মানুষ। সদরঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া লঞ্চটিতে তাই তিল ধারণের ঠাঁই নেই। শনিবার রাজধানীর পোস্তগোলা সেতু থেকে তোলা ছবি- কাজল হাজরা

কোরবানি ঈদের দুই দিন আগে গতকাল শনিবার সদরঘাটে যাত্রীর চাপ বাড়লেও উপচেপড়া ভিড় দেখা যায়নি। কোরবানির ঈদে চাপ এমনিতেই কিছুটা কম থাকে বলে জানিয়েছেন লঞ্চ মালিকরা। তবে তারা মনে করছেন, রোববার ভোরে যাত্রী কিছুটা বাড়তে পারে। খবর বিডিনিউজের।

শুক্রবার সদরঘাট থেকে ১৫০টি লঞ্চ দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন গন্তব্যের পথে ছেড়ে যায়। শনিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত পঁচিশটি লঞ্চ ছেড়ে গেছে বলে বিআইডব্লিউটিএর পরিবহন পরিদর্শক দীনেশ কুমার সাহা জানান। তিনি বলেন, সকালে পন্টুনে যাত্রী ছিল, এখনও আছে, তবে ভিড় যে খুব বেশি তা কিন্তু না।

এম ভি মিতালী লঞ্চের মাস্টার মাহফুজুর রহমান বলেন, সকালে ভালো যাত্রী পাওয়া গেছে। তবে রোজার ঈদের সময় পন্টুন যেমন উপচে পড়ে, এই ঈদে অতটা হয় না।

বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক একেএম আরিফ উদ্দিন বলেন, ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে সব ধরনের উদ্যোগই তারা নিয়েছেন। পন্টুনে ও টার্মিনাল পরিস্কার রাখা হয়েছে, ডেঙ্গু প্রতিরোধে মশা মারার ওষুধ ছিটানো হচ্ছে।

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মওদুত হাওলাদার জানান, সদরঘাটে যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ঢাকা মহানগর পুলিশ ২৫৩ জন সদস্য পালা করে ২৪ ঘণ্টা ডিউটি দিচ্ছেন। তিনি বলেন, ৪৬টি ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা দিয়ে পুরো এলাকা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ৭ থেকে ১৭ আগস্ট এই বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকবে।

মহানগর পুলিশ ছাড়াও নৌ পুলিশ, র‌্যাব, কোস্টগার্ড, ফায়ার সার্ভিস ও বিপুল সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক সদরঘাটে দায়িত্বরত আছেন।

প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ করতে বাড়ি ফেরার জন্য রাজধানীতে থাকা দক্ষিণবঙ্গের, বিশেষ করে বরিশাল বিভাগের ছয় জেলার মানুষের প্রথম পছন্দ নৌপথ। চাঁদপুর, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, খুলনা ও বাগেরহাটের কয়েকটি উপজেলা অভিমুখেও ঢাকা সদরঘাট থেকে ছাড়ে লঞ্চ-স্টিমার।