কারাগারে খালেদা জিয়ার চতুর্থ ঈদ

দেখা করবেন স্বজনরা

প্রকাশ: ১১ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

দেড় বছরেরও বেশি সময় কারাবন্দি অবস্থায় চতুর্থবারের মতো ঈদ করতে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এর আগেও ওয়ান ইলেভেনের জরুরি অবস্থার সময় সংসদ ভবন এলাকার সাবজেলে দুটি ঈদ পালন করেন তিনি। দলীয় প্রধানের মুক্তি না হওয়ায় বিএনপি ও বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের ঈদ আনন্দ অনেকটাই ম্লান। আগামীকাল সোমবার ঈদুল আজহার দিনে কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করবেন স্বজনরা। তবে দলের সিনিয়র নেতারা দেখা করতে চাইলেও কারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি পাননি বলে জানা গেছে।

গত বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে খালেদা জিয়া বন্দি। তবে চিকিৎসার জন্য গত ১ এপ্রিল থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের ৬২১ নম্বর কেবিনে রয়েছেন তিনি।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে কোনো ঈদ আনন্দ নেই। তাদের কাছে ঈদ বেদনাদায়ক। কারণ নেত্রী খালেদা জিয়াকে কারাবন্দি রাখা হয়েছে। বিএনপিসহ বিরোধী দলের ২৫ লাখ নেতাকর্মীর  বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। তারা বাড়িছাড়া, ঘরছাড়া অথবা কারাগারে।

দলীয় প্রধান বন্দি থাকায় এবারও বিএনপির পক্ষ থেকে ঈদের কর্মসূচি রাখা হয়নি। প্রতি বছর খালেদা জিয়া রাজনৈতিক নেতা, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, বিদেশি কূটনীতিকসহ সর্বসাধারণের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করতেন। তবে এবার ঈদের দিন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা ও দোয়া-মোনাজাত করা হবে। পরে জিয়া পরিবারের কনিষ্ঠ সন্তান আরাফাত রহমান কোকোর কবর জিয়ারত করবেন দলটির সিনিয়র নেতারা।

ঈদে দলের জেলা ও মহানগরের নেতা, বিশেষ করে ধানের শীষ প্রতীকে একাদশ সংসদ নির্বাচন করা নেতাদের তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকদের পাশে থাকতে কেন্দ্র থেকে ইতিমধ্যে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ঈদে মাঠ পর্যায়ের নেতারা খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন বিষয়ে জনমত গঠনেও

কাজ করবেন। ঈদের পর দলীয় চেয়ারপারসনের মুক্তি আন্দোলন জোরদার করবে বিএনপি। কেন্দ্র্রীয়ভাবে কর্মসূচি পালনের পাশাপাশি তখন সারাদেশেও কর্মসূচি দেওয়া হবে। ঈদ উপলক্ষে বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে দলের নিহত, পঙ্গু ও গুম হওয়া নেতাকর্মীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্যও কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা রয়েছে।

ঈদ উপলক্ষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার নিজ এলাকা ঠাকুরগাঁও রয়েছেন। সেখানেই তিনি নেতাকর্মীদের নিয়ে ঈদ উদযাপন করবেন। দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন জিয়াউর রহমান ও আরাফাত রহমান কোকোর কবর জিয়ারত করে তার নিজ জেলা কুমিল্লায় যাবেন।

স্বজনরা দেখা করবেন :আগামীকাল ঈদের দিনে খালেদা জিয়ার সঙ্গে পরিবারের সদস্যরা দেখা করবেন। এর মধ্যে তার ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথি, নাতনি জাহিয়া রহমানসহ অন্যরা দেখা করার জন্য ইতিমধ্যে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছেন। তবে দলের সিনিয়র নেতারা দেখা করার আবেদন করলেও অনুমতি পাওয়া যায়নি বলে জানা গেছে।

নয়াপল্টনেই ঈদ করবেন রিজভী :এবারও নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়েই ঈদ করবেন রুহুল কবির রিজভী। খালেদা জিয়া কারাবন্দি হওয়ার আগেই গত বছরের ৩০ জানুয়ারি থেকে বিএনপির নয়াপল্টনের কার্যালয়ে অবস্থান করছেন তিনি।