বাণিজ্যে ওয়ান স্টপ পরিষেবা চালু করা প্রয়োজন- প্রধান বিচারপতি

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

দেশে ব্যবসা-ব্যাণিজ্য সহজতর করতে 'ওয়ান স্টপ' পরিষেবা অবিলম্বে চালু করা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। তিনি বলেছেন, বাণিজ্যিক আইন প্রণয়ন ও আনুষ্ঠানিক বিচারব্যবস্থা বা সালিশের মধ্য দিয়ে বাণিজ্য-সংক্রান্ত মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তি করার বিষয়টি অস্বীকার করা যাবে না। এটি বাংলাদেশে বাণিজ্যিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত।

গতকাল শনিবার সুপ্রিম কোর্টের জাজেস স্পোর্টস কমপ্লেক্সে 'কমার্শিয়াল লিগ্যাল প্র্যাকটিসেস অ্যান্ড রিসেন্ট ডেভেলপমেন্ট' শীর্ষক সেমিনারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রধান বিচারপতি এ কথা বলেন। বিচারব্যবস্থা সংস্কার-সংক্রান্ত সুপ্রিম কোর্টের স্পেশাল কমিটি এবং জাতিসংঘের উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) যৌথভাবে দিনব্যাপী এই  সেমিনারের আয়োজন করে। আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. ইমান আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউএনডিপির আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জি।

পরে সেমিনারের অন্য তিনটি অধিবেশন সেশনে বাণিজ্য-সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. ইমান আলী, হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ, বিচারপতি এম আর হাসান, বিজিএমইএর সভাপতি ড. রুবানা হক, ব্যারিস্টার সামির সত্তার, সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন, ব্যারিস্টার তানজীব-উল আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. সীমা জামান প্রমুখ। এ ছাড়া সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন আপিল বিভাগের বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার। অনুষ্ঠান সমন্বয় করেন ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান। সেমিনারে অর্থ ও রাজস্ব-সংশ্নিষ্ট আপিল ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি, অধস্তন আদালতের বিচারক ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্য বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য সালিশি ব্যবস্থার গুরুত্বের কথা জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সালিশি বিষয়ে আইনের আধুনিকীকরণ এবং আপডেট করার জন্য ক্রমাগত চাহিদা ছিল। এরই আলোকে বাংলাদেশ পুরনো সালিশি আইন, ১৯৪০ বাতিল করে নতুন সালিশি আইন প্রণয়ন করেছে।