সোনাগাজীতে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নেওয়ার দুই মাসেও সন্ধান মেলেনি যুবলীগ নেতার

প্রকাশ: ০৭ জুলাই ২০১৯      

সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি

সোনাগাজীর ওলামাবাজার সংলগ্ন ফকিরবাড়ি। পুরো উপজেলায় প্রভাবশালী পরিবারের এই বাড়িটির নামের সঙ্গে সবাই পরিচিত। বিএনপি অধ্যুষিত চরছান্দিয়া ইউনিয়নের এ বাড়িটি আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। এ বাড়িটির বাসিন্দা মিলন ওরফে গাজী মিলন। তিনি চরছান্দিয়া ইউপির পাঁচ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি, তার বাবা আব্দুস ছামাদ একই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি। বাড়ির অন্য ঘরের বাসিন্দারা যে যার মতো দৈনন্দিন জীবনযাপন করলেও মিলনের ঘরটিতে সুনসান নীরবতা। বৃদ্ধ আব্দুস ছামাদ বলেন, 'আওয়ামী লীগ করাটাই মনে হয় আমাদের অপরাধ, সারা জীবন আওয়ামী লীগ করলাম, অথচ শেষ বয়সে দেখলাম আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে আমার অসুস্থ ছেলেকে বাজার থেকে দিনদুপুরে র‌্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে গেছে। তারপর আর কোনো সন্ধান নেই। বেঁচে আছে, নাকি মেরে পেলেছে- সেটাও জানি না।' এলাকাবাসী জানিয়েছে, আব্দুস ছামাদ ত্যাগি ও পরীক্ষিত আওয়ামী লীগ নেতা। মিলনসহ তার পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের সক্রিয় কর্মী। ১৯৯৮ সালে আওয়ামী লীগ-বিএনপির সংঘর্ষে তার ছেলে উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আব্দুল মান্নান গুলিতে মারা যান।

মিলনকে তুলে নেওয়ার বিষয়ে তার স্ত্রী আকলিমা আক্তার জানান, গত ৮ মে মিলন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়ে বাড়িতে অবস্থান করছিল। ১০ মে দুপুরে শরীরের ক্ষত অংশে ড্রেসিং করার জন্য মিলন ওলামাবাজারের মসজিদ রোডে জাহাঙ্গীর ডাক্তারের দোকানে যায়। বাড়ি থেকে বের হওয়ার ১০ মিনিট পর খবর পাই মিলনকে র‌্যাব পরিচয়ে ৪-৫ জন অস্ত্রধারী লোক জাহাঙ্গীর ডাক্তারের দোকান থেকে তুলে নিয়েছে। ঘটনার কিছুক্ষণ পর মিলনের পরিবারের লোকজন সোনাগাজী মডেল থানা, ফেনীর র‌্যাব ক্যাম্প, ডিবি, পিবিআই অফিসে খোঁজ করলে কেউ মিলনকে অপহরণের বিষয়টি স্বীকার করেনি। এরপর পরিচিত সব জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেও না পেয়ে মিলনকে উদ্ধারের জন্য গত ১৫ মে সোনাগাজী মডেল থানা ও ফেনী র‌্যাব ক্যাম্পে সাধারণ ডায়েরি করা হয়।

জিডি করার পরও তার কোনো সন্ধান না পাওয়ায় গত ৪ জুলাই মিলনের স্ত্রী আকলিম বেগম সোনাগাজীতে সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের কাছে অপহরণের আদ্যোপান্ত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, র‌্যাব ফেনী ক্যাম্পে কর্মরত হাফিজ উদ্দিন অপহরণের আগের দিন তাকে (মিলনকে) বাজার থেকে গ্রেফতারের চেষ্টা করেন। কিন্তু অপহরণের পর থেকে র‌্যাব ফেনী ক্যাম্প কমান্ডার জুনায়েদ জাহিদি মিলনকে অপহরণের সঙ্গে র‌্যাব জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেন।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মইন উদ্দিন বলেন, পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়ার পর মিলনকে উদ্ধারে পুলিশ চেষ্টা করছে। তবে মিলনের পরিবার অভিযোগ করেছে, তাকে উদ্ধারে প্রশাসনের কোনো তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না। জিডি করার পর থেকে তারা আমাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করেনি।

র‌্যাব ফেনী ক্যাম্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এএসপি জুনায়েদ জাহিদি পরিবারের অভিযোগ অস্বীকার করে সমকালকে বলেন, 'মিলন নামে কাউকে র‌্যাব আটক বা তুলে আনেনি। তার পরিবার বিষয়টি আমাদের জানানোর পর তাকে উদ্ধারে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আমরা খবর নিয়ে জানতে পেরেছি, ছোট ফেনী নদীতে ব্লক ও পাথর তোলা নিয়ে মিলনের সঙ্গে নদীর ওপারের অনেকের বিরোধ রয়েছে। ব্যক্তিগত বিরোধের জেরে তাকে তুলে নেওয়া হয়েছে কি-না, সেটাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।'