মহাশূন্যের প্রাচীনতম অণু

প্রকাশ: ১৯ এপ্রিল ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

মহাশূন্যে সবচেয়ে প্রাচীন অণু চিহ্নিত করলেন বিজ্ঞানীরা। মহাবিস্ম্ফোরণের পর এই মহাবিশ্ব কীভাবে বিবর্তিত হয়েছিল সে সম্পর্কিত বিভিন্ন তত্ত্বকেই সমর্থন জোগাচ্ছে তাদের এ সফলতা।

বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন, মহাবিশ্বে পরমাণু থেকে যে অণুটি প্রথম তৈরি হয়েছিল তা হলো হিলিয়াম হাইড্রাইড। এরপর আদিপর্বে মহাবিশ্বের বিবর্তনে এটি বড় ধরনের ভূমিকা রেখেছিল। এটি আসলে ধনাত্মক চার্জবিশিষ্ট একটি আয়ন। হাইড্রোজেন পরমাণুর একটি নিউক্লিয়াসের সঙ্গে যখন হিলিয়াম পরমাণু নিজের একটি ইলেকট্রন

ভাগাভাগি করে, তখনই হিলিয়াম হাইড্রাইড তৈরি হয়। বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস, এটা শুধু মহাবিশ্বের প্রথম আণবিক বন্ধনই নয়, রাসায়নিকভাবে গঠিত এটাই প্রথম কোনো যৌগিক পদার্থ। বিগ ব্যাং তত্ত্ব অনুযায়ী, মহাবিস্ম্ফোরণের পর মহাবিশ্ব যখন অনেকটা শীতল হয়ে আসে তখন হিলিয়াম হাইড্রাইড নামের এ আয়নটির আবির্ভাব ঘটে। এর ফলে হাইড্রোজেনের অণু গঠনের পথও উন্মুক্ত হয়ে যায়।

এক শতাব্দী আগে বিজ্ঞানীরা গবেষণাগারে হিলিয়াম হাইড্রাইড তৈরি করেছিলেন। এরপর থেকেই তারা ব্যাপক আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন, কবে মহাকাশে এ অণুটির অস্তিত্ব শনাক্ত করা যাবে। সে সময় বিজ্ঞানীরা অনুমান করেছিলেন যে, মহাশূন্যে নক্ষত্রের জন্ম হয় যে গ্যাসের মেঘ থেকে সেখানেই হিলিয়াম হাইড্রাইডের অস্তিত্ব থাকার সম্ভাবনা বেশি। কিংবা নক্ষত্রের মৃত্যুর ফলে এর দেহ থেকে ছিটকে পড়া গ্যাসের মেঘেও প্রাচীনতম এ অণুটির অস্তিত্ব থাকতে পারে।

ন্যাচার জার্নালে এক প্রতিবেদনে মহাকাশ বিশেষজ্ঞরা জানান, শেষ পর্যন্ত তারা এই প্রাচীনতম অণুটিকে চিহ্নিত করতে সফল হয়েছেন। পৃথিবী থেকে ৩ হাজার আলোকবর্ষ দূরের সিগনাস নক্ষত্রপুঞ্জের একটি খুদে কিন্তু উজ্জ্বল নীহারিকায় এর সন্ধান পাওয়া গেছে। বিজ্ঞানীদের কাছে মাত্র ৬০০ বছর বয়সী অতি নবীন এ নীহারিকাটি এনজিসি ৭০২৭ নামে পরিচিত। এর কেন্দ্রে থাকা একটি সাদা বামন জাতীয় নক্ষত্র থেকে ছড়িয়ে পড়ছে গ্যাস। সেখানেই হিলিয়াম হাইড্রাইডের অস্তিত্ব মিলেছে। সূত্র :গার্ডিয়ান।