ঐতিহ্যবাহী পর্যটন কেন্দ্রগুলো বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে হবে :রাষ্ট্রপতি

প্রকাশ: ১৯ এপ্রিল ২০১৯

সমকাল ডেস্ক

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, দেশের ঐতিহ্যবাহী পর্যটনকেন্দ্রগুলো বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে হবে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে নবম বাংলাদেশ পর্যটন মেলার উদ্বোধনকালে তিনি এ কথা বলেন। খবর বাসস ও ইউএনবির।

রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের প্রত্নতত্ত্ব নিদর্শন ও আকর্ষণীয় পর্যটন স্থানগুলো বিদেশিদের কাছে তুলে ধরতে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় ও গণমাধ্যমের প্রতিও আহ্বান জানান। তিনি বলেন, 'বিদেশি পর্যটকরা আমাদের অতিথি। তারা যাতে নির্বিঘ্ন এবং আনন্দঘন পরিবেশে বাংলাদেশ ভ্রমণ করতে পারেন এবং বাঙালি আতিথেয়তায় মুগ্ধ হন, তাও নিশ্চিত করতে হবে।'

তিনি বলেন, পর্যটনের অপার সম্ভাবনার কথা চিন্তা করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পরপরই রাষ্ট্রীয়ভাবে পর্যটন শিল্পের প্রাতিষ্ঠানিক উদ্যোগ গ্রহণ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মতোই পর্যটন বিকাশে কাজ করে যাচ্ছেন।

আবদুল হামিদ বলেন, বিদেশি পর্যটকের আগমন বৃদ্ধির লক্ষ্যে অন অ্যারাইভাল ভিসা প্রাপ্য দেশের সংখ্যা বৃদ্ধি করা হয়েছে। ভিসা প্রক্রিয়া সহজ করাসহ মিশনগুলো দ্রুততম সময়ের মধ্যে ই-ভিসা প্রদান করছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, বিদেশি পর্যটকদের বাংলাদেশ ভ্রমণে আগ্রহী করে

তুলতে এ ধরনের মেলা ইতিবাচক অবদান রাখবে। এ ছাড়া উন্নত হবে বন্ধু রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক, বিকশিত হবে পর্যটন শিল্প এবং সমৃদ্ধ হবে জাতীয় অর্থনীতি।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ট্যুর অপারেশন অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (টোয়াব) সভাপতি তৌফিক উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী। এতে বক্তব্য রাখেন এ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আতিকুল হক, বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান খান কবির, বাংলাদেশ পর্যটন বোর্ডের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ড. ভুবন চন্দ্র বিশ্বাস ও টোয়াব পরিচালক তাসলিম আমিন শোভন প্রমুখ। তিন দিনব্যাপী এই মেলায় বাংলাদেশসহ ১৪টি দেশ অংশ নিয়েছে। মেলা চলবে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত।