নরসিংদীতে পথচলা শুরুর পর তিনটি কারখানায় ৩৩ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান করেছে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ। এই জনবলের ৯০ শতাংশ স্থানীয়। তাদের মধ্যে কর্মী নারী রয়েছেন ২০ হাজার। আগামী দুই বছরের মধ্যে আরও দুই হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা যাবে বলে আশা করছে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ।

প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের ৪০ বছরপূর্তিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় এসব তথ্য জানান প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের পরিচালক (বিপণন) কামরুজ্জামান কামাল। গতকাল সোমবার নরসিংদীর পলাশে প্রাণ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের ট্রেনিং একাডেমি মিলনায়তনে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।\হকামরুজ্জামান কামাল বলেন, 'নরসিংদী জেলা প্রাণ-আরএফএলের জন্য অত্যন্ত আবেগের একটি জায়গা। এখান থেকে ক্ষুদ্র পরিসরে খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ কারখানা চালুর মাধ্যমে প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ আজ দেশের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর একটি হতে পেরেছে। নরসিংদীতে আমাদের তিনটি কারখানায় শতাধিক প্রোডাকশন লাইন রয়েছে। আমরা আগামী দিনে কয়েকটি খাতে আরও বিনিয়োগের পরিকল্পনা নিয়েছি।'

প্রাণ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের নির্বাহী পরিচালক শামছুল আলম মিয়া বলেন, 'এখানকার পরিবেশ ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় আমরা নতুন ব্যবসায় বিনিয়োগ করছি ও সফল হচ্ছি।'

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন প্রাণ ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের জেনারেল ম্যানেজার তানুল ইসলাম, ডাঙ্গা ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার ফজলে রাব্বি, ঘোড়াশাল প্রাণ ফ্যাক্টরির জেনারেল ম্যানেজার দীপক কুমার দেবসহ গ্রুপের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

মন্তব্য করুন