আগস্টে রফতানি কমেছে ১১%

ঈদের দীর্ঘ ছুটির প্রভাব পড়েছে রফতানি আয়ে

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

বড় অঙ্কের রফতানি আয়ে নতুন অর্থবছর শুরুর স্বস্তি দ্বিতীয় মাসে এসেই কিছুটা মলিন হয়ে গেল। কেননা আগস্টে রফতানি কমেছে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১১ শতাংশ। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয়ও কম হয়েছে ২৬ শতাংশ। গত মাসে বিভিন্ন ধরনের পণ্য রফতানি থেকে মোট আয় এসেছে ২৮৪ কোটি ডলার। আগের বছরে যা ছিল ৩২১ কোটি ডলার। মূলত ঈদুল আজহার দীর্ঘ ছুটির প্রভাব পড়েছে রফতানি আয়ে।

অর্থবছরের শুরুটা অবশ্য ভালোই হয়েছিল। প্রথম মাস জুলাইয়ে লক্ষ্যমাত্রা থেকে রফতানি বেশি ছিল ১ দশমিক ৫৯ শতাংশ এবং প্রবৃদ্বি হয়েছিল ৮ দশমিক ৫৫ শতাংশ। জুলাইয়ের ভালো রফতানি এবং আগস্টের ধাক্কার পর অর্থবছরের প্রথম দুই মাস শেষে গড় রফতানি এখনও আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১ শতাংশ কম।

অবশ্য, গত বছরের প্রথম দুই মাসেও রফতানিতে একই রকম চিত্র দেখা গেছে। মূলত গত মাসে ঈদুল আজহার কারণে ১০ দিনের মতো উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ ছিল। ওই সময়ে রফতানি হয়েছে কম। কার্যত ২০ দিনের রফতানি আয়ের চিত্র পাওয়া গেছে আগস্টের আয়ে। এ কারণে রফতানি  কম হয়েছে।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, জুলাই-আগস্টে রফতানি মোট হয়েছে ৬৭৯ কোটি ডলারের পণ্য। এ আয়ের ৫৭৪ কোটি ডলারই এসেছে প্রধান পণ্য তৈরি পোশাক রফতানি থেকে। তবে এ খাতের রফতানি দীর্ঘদিন পর কিছুটা কমেছে। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় পোশাকে আয় কম হয়েছে ১১ শতাংশ। গত বছরের একই সময়ের তুলনায় কমেছে শূন্য দশমিক ৩৩ শতাংশ।

ইপিবির প্রতিবেদন অনুযায়ী, আগস্টে হিমায়িত ও জীবন্ত মাছের রফতানি কম হয়েছে ৫ শতাংশ। পাটের রফতানিও ১ শতাংশ কমেছে। অন্যদিকে চামড়া ও চামড়া পণ্যের রফতানি বেড়েছে ১ শতাংশ। বড় পণ্যের মধ্যে কৃষির রফতানি কমেছে সবচেয়ে বেশি প্রায় ২৫ শতাংশ।