এক মাস পর আবার বাড়ল মূল্যস্ম্ফীতি

প্রকাশ: ২১ আগস্ট ২০১৯

সমকাল প্রতিবেদক

মূল্যস্ম্ফীতির ঊর্ধ্বমুখী ধারা নিয়ে শুরু হলো নতুন অর্থবছর। চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে সাধারণ মূল্যস্টম্ফীতি হয়েছে ৫ দশমিক ৬২ শতাংশ। গত অর্থবছরের শেষ মাস জুনে ছিল ৫ দশমিক ৫২ শতাংশ। গত অর্থবছরের শেষ কয়েক মাস মূল্যস্ম্ফীতি ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে। গত জানুয়ারি থেকে মে পর্যন্ত মূল্যস্ম্ফীতিতে ধারাবাহিক ঊর্ধ্বগতি ছিল। গত জুনে তা কিছুটা কমে। কিন্তু পরের মাস জুলাইয়ে মূল্যস্টম্ফীতি আগের মাসের চেয়ে বেড়েছে।

গতকাল রাজধানীতে এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক বৈঠক শেষে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তৈরি মূল্যস্টম্ফীতির হালনাগাদ পরিসংখ্যান তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, জুলাই মাসে দেশের অনেক অংশে বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হয়েছে। এতে ফসলের ক্ষতির সঙ্গে কৃষিপণ্যের পরিবহনে খরচ বেড়েছে। তাছাড়া ঈদ উপলক্ষে সাধারণ মানুষের কেনাকাটা বেড়ে যায়। গত মাসের শেষের দিকে ঈদের কেনাকাটা হয়েছে। এসব কারণে গত মাসে মূল্যস্ম্ফীতি কিছুটা বেড়েছে।

মূল্যস্ম্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রেখে সীমিত ঋণ প্রবৃদ্ধি দিয়ে কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি চলতি অর্থবছরের মুদ্রানীতি ঘোষণা করে। মুদ্রানীতি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মূল্যস্ম্ফীতির প্রত্যাশার ওপর বাংলাদেশ ব্যাংকের ত্রৈমাসিক জরিপের ফলাফল হলো, নিকট ভবিষ্যতে জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধির হার বাড়তে পারে। জরিপে অংশ নেওয়া ৪০ শতাংশ উত্তরদাতা মনে করেন, চলতি অর্থবছরে মূল্যস্ম্ফীতি বেড়ে ৬ থেকে ৭ শতাংশ হতে পারে। ১৫ শতাংশ উত্তরদাতা ওই হার ৭ থেকে ৮ শতাংশ হতে পারে বলে মনে করেন। মাত্র ২৫ শতাংশ উত্তরদাতা মনে করছেন, বর্তমানের যে হার চলছে তা বজায় থাকবে। মুদ্রানীতির বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, গত অর্থবছরে সার্বিক মূল্যস্ম্ফীতি লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে থাকলেও খাদ্য এবং জ্বালানিবহির্ভূত মূল্যস্ম্ফীতি ঊর্ধ্বমুখী ছিল, যা ভবিষ্যতে সার্বিক মূল্যস্ম্ফীতি বৃদ্ধির ইঙ্গিত দেয়। চলতি অর্থবছরের বাজেটে মূল্যস্ম্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশে বেঁধে রাখার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

জুলাই মাসে চাল, মাছ, মাংস, ডিম, মসলা, শাকসবজি, ভোজ্যতেল ও কোমল পানীয়ের দাম বেড়েছে বলে বিবিএসের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এই মাসে মূল্যস্ম্ফীতি ছিল ৫ দশমিক ৪২ শতাংশ, যা আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৪০ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ম্ফীতি ৫ দশমিক ৭১ শতাংশ থেকে বেড়ে ৫ দশমিক ৯৪ শতাংশ হয়েছে।

এদিকে জুলাইতে মজুরি বৃদ্ধির হার আগের মাসের তুলনায় কমেছে। মজুরি বেড়েছে ৬ দশমিক ৪৫ শতাংশ, যা জুনে ছিল ৬ দশমিক ৫৮ শতাংশ।