দেশের চিত্র

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ২৯৪৯ মৃত্যু ৩৭

প্রকাশ: ১১ জুলাই ২০২০

সমকাল প্রতিবেদক

২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ২৯৪৯ মৃত্যু ৩৭

প্রতীকী ছবি

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা গত ২৪ ঘণ্টায় কিছুটা কমেছে। সারাদেশে এ সময় নতুন করে আরও ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৯৪৯ জন। এ নিয়ে করোনা সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল দুই হাজার ২৭৫ জনে। মোট শনাক্ত হয়েছেন এক লাখ ৭৮ হাজার ৪৪৩ জন। নতুন এক হাজার ৮৬২ জনসহ মোট সুস্থ হয়েছেন ৮৬ হাজার ৪০৬ জন।

গতকাল শুক্রবার করোনা সম্পর্কিত নিয়মিত বুলেটিনে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা। তিনি জানান, শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ হাজার ৩৭৭টি নমুনা সংগ্রহ হয়, পরীক্ষা করা হয় ১৩ হাজার ৪৮৮টি। এ নিয়ে মোট নয় লাখ ১৮ হাজার ২৭২টি নমুনা পরীক্ষা হলো। এ পর্যন্ত পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৪৩ শতাংশ, মৃত্যু এক দশমিক ২৭ শতাংশ এবং সুস্থ ৪৮ দশমিক ৪২ শতাংশ।

এর আগে বৃহস্পতিবার মৃত্যুবরণ করেছিলেন ৪১ জন এবং শনাক্ত হয়েছিলেন তিন হাজার ৩৬০ জন। সেদিন পরীক্ষা করা হয় ১৫ হাজার ৬৩২টি। দেখা যাচ্ছে, পরীক্ষার সংখ্যাও কমে আসছে। ফলে শনাক্তের সংখ্যা কমা এলেই উন্নতি কিনা, তা এখনই বলা যাচ্ছে না।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হওয়া ৩৭ জনের মধ্যে পুরুষ ২৯ এবং নারী আটজন। করোনা সংক্রমণে এ পর্যন্ত এক হাজার ৭৯৯ পুরুষ ও ৪৭৬ জন নারীর মৃত্যু হলো। ২৪ ঘণ্টায় ২৩ জন হাসপাতালে এবং ১৪ জন বাড়িতে মারা গেছেন। মৃতদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১২, চট্টগ্রাম বিভাগে ১৭, সিলেট, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগে দু'জন করে এবং বরিশাল ও ময়মনসিংহ বিভাগে একজন করে রয়েছেন।

নাসিমা সুলতানা জানান, ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে সাতজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে নয়জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১৫ জন এবং ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে চারজন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক জানান, ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ৮৯৩ জন, ছাড়া পেয়েছেন ৭৬৮ জন। এখন পর্যন্ত আইসোলেশনে যেতে হয়েছে ৩৪ হাজার ৯১৫ জনকে এবং ১৭ হাজার ৭২৩ জন ছাড়া পেয়েছেন। বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন ১৭ হাজার ১৯২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টাইনে যুক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৬০০ জন, আর তিন লাখ ৮৯ হাজার ১৯১ জন এখন পর্যন্ত কোয়ারেন্টাইনে যুক্ত হয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় দুই হাজার ১৬৯ জনসহ তিন লাখ ২৫ হাজার ৬৪৪ জন কোয়ারেন্টাইন থেকে মুক্ত হয়েছেন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ৬৩ হাজার ৫৩৭ জন।

এদিকে, মৃত্যুর বিভাগভিত্তিক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ঢাকা বিভাগেই অর্ধেকের বেশি মারা গেছেন। এ হার ৫ দশমিক ১১ শতাংশ। নাসিমা সুলতানা জানান, এ দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে চট্টগ্রাম, এখানে মৃত্যুর হার ২৬ দশমিক ৪৬ শতাংশ। এ ছাড়া রাজশাহীতে পাঁচ দশমিক শূন্য এক শতাংশ, খুলনায় চার দশমিক ৯২ শতাংশ, সিলেটে চার দশমিক ৩৫ শতাংশ, বরিশালে তিন দশমিক ছয় শতাংশ, রংপুরে তিন দশমিক ১২ শতাংশ এবং ময়মনসিংহ বিভাগে দুই দশমিক ৪২ শতাংশ।