শ্রীলঙ্কাকে ৪০০ এর নিচে আটকে রাখার পরিকল্পনায় সফল বাংলাদেশ। অতিথিরা আগে ব্যাট করতে নেমে স্কোরবোর্ডে তুলেছে ৩৯৭ রান। জবাবে তামিম ও জয়ের কার্যকরী ব্যাটিংয়ে তৃতীয়দিন দারুণ এক সেশন পার করলো বাংলাদেশ। লাঞ্চ বিরতির আগে ৪৭ ওভার শেষে বিনা উইকেটে ১৫৭ রান তুলেছে টাইগাররা। জয় ৫৮ রানে ও তামিম সেঞ্চুরি থেকে ১১ রান দূরে ৮৯ রানে অপরাজিত আছেন। বাংলাদেশ পিছিয়ে আছে ২৪০ রানে। 

চট্টগ্রাম টেস্টের তৃতীয় দিন সকালে তামিম ইকবালের অর্ধশতকে দারুণ শুরু করেছে স্বাগতিকরা। আগের দিন ৩৫ রানে অপরাজিত থাকা তামিম এদিন প্রথম পাঁচ ওভারের মধ্যে নিজের অর্ধশতক পূর্ণ করেন। সবমিলিয়ে ৭৩ বলে ৭ চারে অর্ধশতক পূর্ণ করেন তামিম। এটা তামিমের ক্যারিয়ারের ৩২ তম অর্ধশতক। ফিফটিতে টেস্ট ক্যারিয়ারে ৪৯০০ রান পূর্ণ করেছেন। পাঁচ হাজারি ক্লাবে প্রবেশ করতে অপেক্ষা আর ১০০ রানের।

এর আগে টেস্টে শতরান এসেছিল সেই  ২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কা সফরে। একই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে গল টেস্টে সৌম্য সরকারকে নিয়ে ১১৮ রানের জুটি গড়েছিলেন তামিম।  কলম্বোতে বাংলাদেশের শততম টেস্টেও তামিম-সৌম্য জুটিতে এসেছিল ৯৫ রান।

এরপর বাংলাদেশ খেলেছে ৩১ টেস্ট। অবশেষে ৬১ ইনিংস পর ওপেনিংয়ে শতরানের জুটি গড়েছে দুই টাইগার ওপেনার তামিম ও জয়। আগের দিনের ৭৬ রানের সঙ্গে সকালে আরও ২৮ রান যোগ করেন জয় ও তামিম। যেখানে তামিমের ব্যাট থেকে আসে ২২ রান এবং জয় যোগ করেন ৫ রান। এতে পাঁচ বছর পর টেস্টে শতরানের ওপেনিং জুটি দেখলো বাংলাদেশ।

তামিমের পর অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন মাহমুদুল হাসান জয়ও। তার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় হাফ সেঞ্চুরি এটি, যা দেশের মাটিতে প্রথম। ১১০ বলে ৮টি চারের মারে ফিফটি করেন এই তরুণ ব্যাটসম্যান। জয়ের প্রথম হাফ সেঞ্চুরি ছিল নিউজিল্যান্ডের মাটিতে। এরপর সেঞ্চুরি পান দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে। ৫ টেস্টের ক্যারিয়ারে জয়ের দুটি হাফ সেঞ্চুরি ও একটি সেঞ্চুরি।