কলম্বোর নেগাম্বুয়ায় বাংলাদেশ দলের আবাস জেটউইং বিচ হোটেল। বিসিবি মিডিয়া ম্যানেজার রাবীদ ইমাম জানালেন, বারান্দায় দাঁড়ালেই সৈকত দেখা যায়। ভারত মহাসাগরের উত্তাল ঢেউয়ের গর্জনও শোনা যায় কান পাতলে। এই হোটেলেই ১৮ এপ্রিল পর্যন্ত থাকবেন মুমিনুলরা। তিন দিন আইসোলেশন, দু'দিন অনুশীলন এবং দু'দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে নেগাম্বুয়া ছাড়বে দল। ১৯ এপ্রিল যাবে টেস্ট ভেন্যু ক্যান্ডিতে। বোঝাই যাচ্ছে, টাইগারদের এবারের বিদেশ সফর নিউজিল্যান্ডের মতো অতটা কঠিন হবে না। শ্রীলঙ্কার করোনা পরিস্থিতি ভালো হওয়ায় স্বস্তিতেই থাকবেন মুমিনুলরা।
১৫ এপ্রিল থেকেই মাঠে যেতে দেওয়া হবে টাইগারদের। তবে তার জন্য সবার কভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ হতে হবে। গতকাল কলম্বো পৌঁছানোর পর টিম বাংলাদেশের সবার নমুনা নিয়ে গেছে লঙ্কান স্বাস্থ্য বিভাগ। তিন দিনের আইসোলেশন শেষ হলে আবারও কভিড টেস্ট করা হবে। যদিও দেশ ছাড়ার আগে দু'বার কভিড টেস্টে নেগেটিভ হতে হয়েছে স্কোয়াডের সবাইকে। আশা করা যায়, কলম্বোর টেস্টেও নেগেটিভ হবে সবাই। সে যাই হোক, তামিমদের এবারের বিদেশ সফর উপভোগ্য হওয়ারই কথা। এ সময়ে দেশে থাকলে লকডাউনে ঘরবন্দি হয়ে পড়তেন তারা। শ্রীলঙ্কায় খেলার মধ্যে দিনগুলো কেটে যাবে। স্বাগতিকদের বিপক্ষে দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। ২১ থেকে ২৫ এপ্রিল আর ২৯ এপ্রিল থেকে ৩ মে ক্যান্ডির পাল্লেকেলে স্টেডিয়ামে হবে ম্যাচ দুটি। সফর শেষ করে ক্রিকেটাররা দেশে ফিরবেন ৪ মে।

মন্তব্য করুন