জোয়াকিম লো'কে আর জাতীয় দলের কোচ হিসেবে দেখতে চান না জার্মানরা। স্পেনের কাছে ৬-০ গোলে বিধ্বস্ত হওয়ার পর ৬০ বছর বয়সী এ কোচের পদত্যাগ করা উচিত ছিল বলেও মনে করছেন বেশ ক'জন সাবেক জার্মান ফুটবলার। ১৯৩১ সালের পর এটাই জার্মানদের সবচেয়ে বড় পরাজয়।

স্পেনের কাছে বিশাল এ পরাজয় জার্মান ফুটবলে সংকট হিসেবে দেখা হচ্ছে। এ সংকট মোকাবিলায় আগামী বুধবার মিউনিখে জার্মান ফুটবল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট ফ্রিটজ কেলারের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন জোয়াকিম লো। জাতীয় দলের সঙ্গে এখনও তার দুই বছরের চুক্তি বাকি। আগামী বছর জুনে অনুষ্ঠেয় ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য দল সাজানোর পরিকল্পনা নিয়ে গণমাধ্যমে কথা বলেছেন লো।

সে যাই হোক, জোয়াকিম লোর সঙ্গে টিম ডিরেক্টর অলিভার বিয়েরহফেরও পদত্যাগ চান জার্মান ফুটবল ভক্তরা। বিষয়টি নিয়ে জার্মানদের মধ্যে এক জরিপ চালিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি। সেখানে ৮৪ শতাংশ জার্মান লো-বিয়েরহফের বিদায়ের পক্ষে। কেবল মাত্র ১৩.৩ শতাংশ জার্মান এই জুটিকে আরও একটা সুযোগ দিতে চান। ২০১৪ বিশ্বকাপ জয়ে এই দু'জনের অবদানের কথা ভেবেই তারা সুযোগটা দিতে চান।

লিভারপুল কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপ বা বায়ার্ন মিউনিখ কোচ হ্যান্সি ফ্লিককে লোর উত্তরসূরি হিসেবে দেখতে চান অধিকাংশ জার্মান। এর মধ্যে ২০১৪ সালে লোর সহকারী হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ফ্লিকের দিকেই ভোট বেশি।

অধিকাংশ জার্মান মনে করেন, লো যথেষ্ট সুযোগ পেয়েছেন। ২০১৮ বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকে ছিটকে যাওয়ার পর গত দুই বছরেও জার্মান দলের কোনো উন্নতি হয়নি বলেই তাদের ক্ষোভ।

তবে ১৯৯০ বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক লোথার ম্যাথুজ মনে করছেন, ২০১৪ বিশ্বকাপ জয়ের পরই লোর বিদায় নেওয়া উচিত ছিল। গত ১৪ বছর ধরে জার্মানির কোচ জোয়াকিম লো।