বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে টি২০ সিরিজ

জয়ে শুরু চান মাহমুদুল্লাহ

প্রকাশ: ০৯ মার্চ ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

শুকনো ঘাসের কুচো ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে পিচের ওপর। ভারী রোল করায় ডগাগুলো বসে গেছে। কাটা ঘাসের ওপর বল পড়ে স্কিড করে ব্যাটে যায়। বল স্পিন করে কম এবং পেস বলে ইভেন বাউন্স থাকে। এককথায় ব্যাটিং ট্র্যাক করা হয়েছে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজের প্রথম টি২০ ম্যাচের জন্য। ব্যাটসম্যানরা রানের ভেতরে থাকায় এই কৌশলে যাওয়া। কাটা ঘাসের উইকেটে বোলারদেরও কষ্ট করে সফল হতে হয়। যেটা স্বাগতিকদের চেয়ে জিম্বাবুয়ে বোলারদের জন্য একটু বেশিই চ্যালেঞ্জিং। সে যা-ই হোক, মাহমুদুল্লাহরা চান টেস্ট ও ওয়ানডের মতো টি২০ সিরিজেও বিজয়বেদি সাজাতে।

বাংলাদেশ টি২০ সংস্করণে আগের চেয়ে ভালো দল। গত বছর ভারত সফরে তিন ম্যাচের সিরিজে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ক্রিকেট খেলেছে। ছন্দটা পাকিস্তান সফরে ধরে রাখতে না পারলেও ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সেরা ক্রিকেটটাই খেলার চেষ্টা করবে টাইগাররা। অধিনায়ককের ভাষায়, খুব ভালো একটা রান আশা করতে পারি। আমাদের ব্যাটসম্যানরা খুব ভালো ছন্দে আছে। এটা আমাকে ও আমার দলকে আত্মবিশ্বাস দিচ্ছে। উইকেট ভালো হলে ১৮০ রান করার লক্ষ্য মাহমুদুল্লাহদের।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই আন্তর্জাতিক টি২০ অভিষেক হয়েছিল বাংলাদেশের। ২০০৬ সালে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে নিজেদের অভিষেক ম্যাচে জিতেছিল টাইগাররা। অভিষেকের পর থেকে গত ১৪ বছরে ৯৪টি আন্তর্জাতিক টি২০ খেলে ফেলেছে তারা। জিতেছে ৩২ ম্যাচে, হার হয়েছে ৬২টি। তবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সাফল্যের পাল্লা ভারী টাইগারদের দিকে। দেশে এবং বিদেশে এ দুই দলের ১১ ম্যাচের সাতটিই জিতেছে। দেশের মাটিতে নয় ম্যাচ খেলে ছয়টিতে জয়। বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে শেষ টি২০ খেলেছে গত বছর ত্রিদেশীয় সিরিজে। তিন জাতির ওই টুর্নামেন্টে দুই ম্যাচেই জিতেছিল মাহমুদুল্লাহর দল। দ্বিপক্ষীয় সিরিজেও ধারাবাহিকতা রাখতে চায় স্বাগতিকরা। 

আত্মবিশ্বাসে টইটুম্বর থাকলেও প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়েকে সমীহের চোখেই দেখছেন অধিনায়ক। রোববার শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে টাইগার দলপতি বললেন, আমরা যেহেতু টেস্ট ও ওয়নাডে সিরিজে ভালো ক্রিকেট খেলেছি। তার পরও আমার মনে হয়, টি২০-তে জিম্বাবুয়ে বেশ শক্তিশালী দল। তাদের ব্যাটিং অর্ডার বেশ ভালো। আমাদেরও খুব ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। আমরা যদি সহজভাবে নেই, তাহলে খারাপ হবে।

তামিম ইকবাল ও লিটন কুমার দাসকে ছন্দে পাওয়া টিম ম্যানেজমেন্টের জন্য স্বস্তির। সিলেটে অনুষ্ঠিত তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছেন তারা। প্রথম ও শেষ ম্যাচে সেঞ্চুরি পেয়েছেন লিটন। দেশের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড এখন তার। লিটন যার রেকর্ড ভেঙেছেন সেই তামিম টানা দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছেন। 

আজ সোমবার টি২০-তেও ওপেনিং জুটি জ্বলে উঠলে মিরপুরেও উঠতে পারে রানের ঝড়। যদিও জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক শন উইলিয়ামসের বিশ্বাস, টি২০-তে ভালো খেলবে তার দল। তিনি বলেন, ম্যাচ জয়ের ব্যাপারে আমি শতভাগ নিশ্চিত। দুটি বলই টি২০ ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে। তামিমকে আউট করতে পারলে যে কোনো কিছু হবে। 

উইলিয়ামস জানান, টেস্ট ও ওয়ানডের মতো টি২০-তে বোলিং ও ফিল্ডিং নিয়ে ভুগতে হবে না। ওই দুই সংস্করণের চেয়ে টি২০ দলটি ভালো বলে মনে করেন তিনি। মিরপুরে আজ সেরা ক্রিকেটটা খেলতে পারবেন বলে বিশ্বাস তার। মাহমুদুল্লাহও আত্মবিশ্বাসী তার দল নিয়ে। তিনি জানান, কোচ রাসেল ডমিঙ্গোর সঙ্গে কথা বলে ব্যাটসম্যানদের পছন্দের জায়গায় খেলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সাইফউদ্দিন স্কোয়াডে থাকায় বোলিংয়েও ভারসাম্য থাকবে বলে বিশ্বাস তার। 

তিনি বলেন, কৌশলগত দিক নিয়ে কোচের সঙ্গে কথা হয়েছে। আশা করি যারা খেলবে তারা পজিশন অনুযায়ী খেলবে। যেহেতু সাইফউদ্দিন আছে তাই দলের অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। একজন বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে ওর ভূমিকা অনেক বেশি।

প্রথম টি২০র একাদশে সাইফউদ্দিনসহ তিন পেসার খেলবে। মুস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে শফিউল ইসলামের খেলার সম্ভাবনা বেশি। স্পিনার দু'জন লেগি আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের সঙ্গে মেহেদী হাসান আর নাসুম আহমেদের থেকে একজন।