বড় হারেও কিছু ভালোর সন্ধান পেয়েছেন মুমিনুল

প্রকাশ: ১৬ নভেম্বর ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: এএফপি

ভারতে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে এসে তিনটিতেই টস হারে দক্ষিণ আফ্রিকা। তিন ম্যাচেই ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন এবং পাহাড়সম রান তুলে দক্ষিণ আফ্রিকাকে বড়-বড় হার উপহার দেন। সেই ভারতের বিপক্ষে ভারতের মাটিতে দুই টেস্টের প্রথম ম্যাচে টস জেতেন মুমিনুল হক। খুব বেশি না ভেবে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। সেটাই কাল হয়েছে বাংলাদেশ দলের জন্য।

ইন্দোরের হলকার স্টেডিয়ামের লাল মাটির উইকেট পেস সহায়ক। ব্যাটিং কিংবা বোলিং নয় বরং স্পোর্টিং উইকেট। পেসারদের বিপক্ষে লড়াই করতে পারলে রান উঠবে। বিশেষ করে প্রথম দিনের উইকেটে পেসারদের চ্যালেঞ্জ নেওয়ার মতো ব্যাটিং লাইন-আপ থাকতে হবে। বাংলাদেশের যা নেই। ফলত ভারতীয় পেসাররা গতি, সুইং এবং বাউন্সের পসরা সাজিয়ে নাভিশ্বাস তুলে ছেড়েছেন্য বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানদের।

তিন দিনে বাংলাদেশ দল নিজেদের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শুরুর ম্যাচটা হেরেছে ইনিংস ও ১৩০ রানের বিশাল ব্যবধানে। ম্যাচ শেষে ভারত সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ম্যাচে নেতৃত্বের অভিষেক হওয়া মুমিনুল হক টস জিতে ব্যাটিং নেওয়াকেই দুষলেন, 'টস অবশ্যই বড় একটা প্রভাব ফেলেছে। আমাদের জন্য কাজটা কঠিন করে তুলেছে। আমরা টস জিতেছি এবং ব্যাটিং নিয়েছে। যা ছিল কঠিন এক সিদ্ধান্ত।'

তিন দিনে টেস্ট হারা। অল্প রানে গুটিয়ে যাওয়া। আবার ভারতের রান চাপায় পড়া ম্যাচে ইতিবাচক তেমন কিছু খুঁজে পাওয়ার কথা না। তবে বাংলাদেশ অধিনায়ক এ ম্যাচ থেকেও খুঁজে নিচ্ছেন কিছু ইতিবাচক দিক, 'এ ম্যাচেও আমরা ইতিবাচক অনেক কিছু পেয়েছি। বিশেষ করে আবু জায়েদের চার উইকেট পাওয়া। দুই ইনিংসে মুশফিকুর (ভাই) দারুণ ব্যাটিং করেছেন। লিটনও ভালো খেলেছেন। তবে বাংলাদেশের টপ অর্ডারের ব্যাটসম্যানদের ভারতের শক্তিশালী বোলিং লাইন আপের বিপক্ষে ধুঁকতে হয়েছে। আমাদের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের তাই ১৫-২০ ওভার করে ক্রিজে থাকার চেষ্টা করতে হতো।'

ভারত ইডেন গার্ডেনে দিবা-রাত্রির ঐতিহাসিক টেস্ট খেলবে। সঙ্গে যোগ হবে গোলাপি বলে খেলার অভিজ্ঞতা। প্রথম টেস্টের একাদশের বাইরে যারা ছিলেন তারা গোলাপি বলে খেলার প্রস্তুতি নিয়েছেন। বাংলাদেশ দলের বাকি সদস্যরাও এবার গোলাপি বলে খেলার প্রস্তুতি নেবেন। তবে নতুন ওই অভিজ্ঞতা কেমন হতে যাচ্ছে তা নিয়ে কোন ধারনা নেই মুমিনুলের। গোলাপি বলে টেস্ট খেলা নিয়ে তাই বাড়তি কোন চাপ নিচ্ছেন না তারা। বিশ্বাস রাখছেন উপভোগের মন্ত্রে। মুমিনুল বলেন, 'দিবা-রাত্রির টেস্ট নিয়ে আমাদের কোন ধারনা নেই। আমরা শুধু দিবা-রাত্রির টেস্ট বোঝার এবং উপভোগ করার চেষ্টা করবো।'