‌'ওভার থ্রো' নিয়ে মন্তব্য করতে অনিচ্ছুক আইসিসি

প্রকাশ: ১৭ জুলাই ২০১৯     আপডেট: ১৭ জুলাই ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

কাপ নিয়ে উল্লাস করছে ইংল্যান্ড। ছবি: ইন্টারনেট

লর্ডসের মহানাটকীয় ফাইনালে ওভার থ্রো থেকে ইংল্যান্ডের পাওয়া ছয় রান নিয়ে পুরো ক্রিকেট বিশ্বে বিতর্ক চলছে। এরই মধ্যে আইসিসির এলিট প্যানেলের সাবেক আম্পায়ার সাইমন টোফেল বলেছেন, আম্পায়াররা ভুল সিদ্ধান্ত দিয়েছেন। তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে ইচ্ছুক নয় আইসিসি।

ওই ছয় রানের জন্যই ফাইনাল টাই হয় এবং সুপার ওভারে গড়ায়। সুপার ওভারেও টাই হলে বেশি বাউন্ডারি মারার নিয়মে ইংল্যান্ডের হাতে শিরোপা তুলে দেওয়া হয়। রান তাড়া করতে নামা ইংল্যান্ডের শেষ ওভারের তৃতীয় বল মিড উইকেটে পাঠিয়ে দুই রান নিতে চেয়েছিলেন স্টোকস ও আদিল রশিদ। কিন্তু গাপটিল বল ধরে থ্রো করেন, তখন রানআউট থেকে বাঁচতে ঝাঁপিয়ে পড়েন স্টোকস। ওই সময় বল তার ব্যাটে লেগে দিক পাল্টে সীমানা পেরিয়ে যায়। তখন আম্পায়াররা ছয় রান দেন।

কিন্তু আইসিসির আইনের ১৯.৮ ধারায় আছে, বল থ্রো করার সময় যদি দুই ব্যাটসম্যান নিজেদের ক্রস করেন তখনই রান দেওয়া হবে। এখানে গাপটিলের থ্রো করার সময় দুই ব্যাটসম্যান ক্রস করেননি। এক রান পূর্ণ করে ননস্ট্রাইক প্রান্ত থেকে কেবল দৌড় শুরু করেছিলেন স্টোকস। 

যার মানে দাঁড়ায়, ওই বল থেকে ইংল্যান্ড পাঁচ রান পেত। তখন শেষ দুই বলে চার রান লাগত। স্ট্রাইকে থাকতেন মাত্র উইকেটে আসা আদিল রশিদ। ওভার থ্রো থেকে পাওয়া ওই ছয় রান নিয়ে আইসিসির মন্তব্য জানতে চেয়েছিল নিউজিল্যান্ডের একটি দৈনিক। আইসিসির একজন মুখপাত্র তাদের বলেন, 'নিয়ম-কানুনের ভিত্তিতে আম্পায়াররা মাঠে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। নীতিগত কারণে আমরা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করব না।'

ওই ছয় রানের সিদ্ধান্তের পর প্রায় মিনিট খানেক খেলা বন্ধ ছিল। মাঠের মাঝে দুই আম্পায়ার পরামর্শ করেছেন অবশ্য। তখন তারা তৃতীয় আম্পায়ারের সাহায্য চাইলেই পারতেন। কারণ ভিডিও দেখলেই বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যেত।

ক্রিকেটে অবশ্য অলিখিত একটি নিয়ম আছে, সাধারণত বল ব্যাটসম্যানের শরীর বা ব্যাটে লাগলে সুযোগ থাকা সত্ত্বেও রান নেন না; কিন্তু বল মাঠের বাইরে চলে যাওয়ায় চার দেওয়া ছাড়া আম্পায়ারদের সামনে পথ ছিল না। এ নিয়ম পরিবর্তনের দাবি তুলেছেন অনেকে।