আমরা স্বপ্নে বিভোর

প্রকাশ: ১৪ জুন ২০১৮     আপডেট: ১৪ জুন ২০১৮       প্রিন্ট সংস্করণ     

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: ফাইল

২০১৪ ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ আমার হৃদয় ভেঙে গিয়েছিল। বিশেষ করে সেমিফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে খেলতে না পারাটা আমার জন্য ছিল অনেক কষ্টের। আর জার্মানির কাছে ১-৭ গোলে হার হজম করাটা ছিল কঠিন। আমার পক্ষে তো আরও বেশি। কারণ চোটের জন্য ম্যাচটা খেলতে পারিনি। ওই চোট আমার ক্যারিয়ার শেষকরে দিতে পারত। আর দুই সেন্টিমিটার দূরে লাগলে আজীবন হুইলচেয়ারে কাটাতে হতো। ভাগ্যিস অতটা লাগেনি। তাই তাড়াতাড়ি মাঠে ফিরতে পেরেছি; যা প্রচণ্ড ভালোবাসি, সেই খেলাটা এখনও খেলতে পারছি। সামনেই আরও একটা বিশ্বকাপ। চ্যালেঞ্জের জন্য আমরা তৈরি। চার বছর আগের সময়টা পেছনে ফেলে এসেছি।

এবার দল হিসেবে আমরা ব্যালান্স। তা দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বাছাইপর্বেই আপনারা দেখেছেন। বাছাইপর্বে ১৮ ম্যাচ খেলেছি। ভিন্ন দেশ, ভিন্ন পরিবেশে খেলেছি; যা অবশ্যই বড় পরীক্ষা ছিল আমাদের জন্য। তবে আমরা নিজেদের স্টাইলে খেলেছি। সবার আগে রাশিয়া বিশ্বকাপের মূল পর্ব নিশ্চিত করেছি, যা আমাদের সবার কাছেই ছিল বিশেষ। রাশিয়াতেও একই দাপট দেখাতে চাই। আমার বিশ্বাস, ব্রাজিল এবার পারবে। আমরা কঠোর পরিশ্রম করেছি। 

নিজেদের ওপর বিশ্বাস রাখতে হয়, স্বপ্ন দেখতে হয়। আপনারা বলতে পারেন, তোমরা ব্রাজিলিয়ান বলেই স্বপ্ন দেখবে। হ্যাঁ, আমরা স্বপ্ন দেখছি। স্বপ্ন দেখা কোনো নিষিদ্ধ বিষয় নয়। ব্রাজিলিয়ান ফুটবলের পাঁড় ভক্ত হিসেবে বলছি, বিশ্বকাপ জেতাই আমার আজীবনের স্বপ্ন। সেই সুযোগটা এখন আমাকে হাতছানি দিয়ে ডাকছে। ব্যাপারটা একই সঙ্গে মজার এবং অবিশ্বাস্য, তাই না!

চোট নিয়ে আমিও চিন্তায় ছিলাম। বিশ্বকাপের কথা ভেবেই দ্রুত অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। মনে হয়, সবকিছু ঠিক থাকবে। পারফেক্ট হবে আমাদের জন্য। প্রতিনিয়ত আমি ভালো অনুভব করছি। দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছি। অস্ট্রিয়ার বিপক্ষে তো শুরুর একাদশে ছিলাম। ওই ম্যাচ খেলার পর নিজের ওপর আমার বিশ্বাসটা আরও বেড়ে গেছে। আশা করি, রাশিয়ায় আমি ভালো করতে পারব। 

এই মুহূর্তে বিশ্বের সেরা ৩২ দলের মধ্যে আমরা আছি। বিশ্বকাপে কোনো ম্যাচই সহজ নয়। আমাদের গ্রুপে সুইজারল্যান্ডের ফুটবল ইতিহাস দুর্দান্ত। সার্বিয়া নতুন দেশ হলেও ছাপ রেখেছে। আর কোস্টারিকা? কতটা শক্তিশালী তার প্রমাণ তো রয়েছে চোখের সামনেই। যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বকাপের টিকিট কাটতে পারেনি। ওরা পেরেছে! নকআউট পর্বে উঠতে হলে আমাদের সেরাটাই দিতে হবে। কোনো দলকেই হালকা করে দেখা ঠিক নয়। কারণ যোগ্যতা প্রমাণ করেই সবাই বিশ্বকাপে খেলতে এসেছে। 

ফেভারিট যদি বলতে হয়, তাহলে আমি অবশ্যই ব্রাজিলকেই এগিয়ে রাখব। এই ব্রাজিলের আছে জয়ের ক্ষুধা। গত ১৬ বছর ধরে আমরা বিশ্বকাপ জিততে পারিনি, যা আমাদের ফুটবল সমর্থকদের জন্য হতাশার। আমরাও হতাশ। এবার হয়তো দীর্ঘদিনের অপেক্ষার অবসান ঘটাতে পারব। আমরা যেমন ফেভারিট, বিশ্বকাপ জয়ের মতো সামর্থ্য আছে আর্জেন্টিনা ও উরুগুয়েরও। 

এই দুটি দল লাতিন আমেরিকার ঐতিহ্য। তবে এবার যেহেতু ইউরোপে বিশ্বকাপ হচ্ছে, তাই ফেভারিটের তালিকায় ইউরোপের দেশগুলোই বেশি থাকবে। জার্মানি তো গতবারের চ্যাম্পিয়ন। তাছাড়া স্পেন, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, পর্তুগালও আছে। তাই যে কোনো একটা দলকে ফেভারিট তকমা দেওয়া কঠিন। তারপরও আপনাকে ব্রাজিলকেই এগিয়ে রাখতে হবে। 

আরও পড়ুন

হোয়াটসঅ্যাপে একই বার্তা পাঁচবারের বেশি পাঠানো যাবে না

হোয়াটসঅ্যাপে একই বার্তা পাঁচবারের বেশি পাঠানো যাবে না

হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজিং সার্ভিস ব্যবহার করে ভুয়া খবর ছড়ানো কিছু দেশের ...

চাঁপাইনবাবগঞ্জে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে র‌্যাবের অভিযান, আটক ১

চাঁপাইনবাবগঞ্জে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে র‌্যাবের অভিযান, আটক ১

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ১৫টি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে একজনকে ...

বদির তিন ভাই 'সেফহোমে'

বদির তিন ভাই 'সেফহোমে'

স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পণে ইচ্ছুক ইয়াবাকারবারিরা এখন কক্সবাজারে পুলিশ হেফাজতে এক ধরনের ...

প্রবৃদ্ধির প্রথম সারিতে থাকবে বাংলাদেশ

প্রবৃদ্ধির প্রথম সারিতে থাকবে বাংলাদেশ

চলতি বছর বিশ্বের যেসব দেশে ৭ শতাংশ বা এর বেশি ...

পেশা পাল্টাচ্ছে পাঁচুপুরের কামার কুমার জেলেরা

পেশা পাল্টাচ্ছে পাঁচুপুরের কামার কুমার জেলেরা

কামারপাড়া। ভেবেছিলাম পাড়ায় ঢুকতেই হাঁপর আর লোহা পেটানোর শব্দ শোনা ...

স্বেচ্ছাশ্রমে ১০ কিলোমিটার রাস্তা

স্বেচ্ছাশ্রমে ১০ কিলোমিটার রাস্তা

'দশে মিলে করি কাজ, হারি জিতি নাহি লাজ'- এ প্রবাদটিকে ...

এমএম কলেজে নির্বাচনে বাধা গঠনতন্ত্র

এমএম কলেজে নির্বাচনে বাধা গঠনতন্ত্র

গঠনতন্ত্রের 'সামান্য বাধা'য় দেয়াল উঠেছে যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজ ...

ক্রমেই বড় হচ্ছে একুশে বইমেলা

ক্রমেই বড় হচ্ছে একুশে বইমেলা

ক্রমে বিকশিত হচ্ছে প্রকাশনা শিল্প। সেইসঙ্গে প্রকাশকের সংখ্যাও বাড়ছে প্রতিবছর। ...