কানাডার বিভিন্ন প্রদেশে আনন্দ উৎসবের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। আর এ উৎসবে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সঙ্গে যোগ দিচ্ছেন বিদেশিরাও।

এ বছর কানাডাস্থ বাংলাদেশ পূজা পরিষদ দেবীর আরাধনা শুরু করেছে পঞ্জিকার তিথি অনুযায়ী। তাদের পূজা শুরু হয়েছে গত ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে এবং শেষ হবে আগামী ৪ অক্টোবর। 

অন্যদিকে ক্যালগেরির 'আমরা সবাই' আগামী ৮ অক্টোবর থেকে ১০ অক্টোবর পর্যন্ত ক্যালগেরির চেস্টারমেয়ার রিক্রেয়েশন সেন্টারে এবং বঙ্গীয় পরিষদ সংগঠন একই সময়ে দুর্গোৎসব করবে ক্যালগেরির নর্থইস্টের জেনেসিস সেন্টারে।

দীর্ঘ দুই বছর টানা বিরতির পর নানা মাত্রিক আচার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শারদীয় উৎসবে চলছে দেবী দুর্গার আরাধনা। 

এছাড়া এ বছর উৎসবের সাংস্কৃতিক আয়োজনে অংশ নেবেন বাংলাদেশ ও ভারতের শিল্পীরা।

বাংলাদেশ পূজা পরিষদ অব ক্যালগেরির সভাপতি প্রণব দাস বলেন, দুর্গতি বিনাশ করার জন্য তার আবির্ভাব। তাই দেবীর নামকরণ ‘দুর্গা’। আমরা বিশ্বাস করি দেবী সর্বত্র আছেন, মঙ্গলের বার্তা দিয়ে তিনি পৃথিবীকে শান্তিময় করে তুলবেন।

ক্যালগেরির ‘আমরা সবাই’ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি রুপক দত্ত বলেন, আনন্দের এই শুভ দিনে মায়ের আশীর্বাদে দেশে ও বিশ্বের মধ্যে শান্তি বিরাজ করবে, আগামী দিনগুলো আরও সুন্দর হয়ে উঠবে, সকল পাপ ও পঙ্কিলতা দূর হয়ে মানুষের মধ্যে শান্তি ফিরে আসবে এমনটাই আমাদের প্রত্যাশা।

ক্যালগেরির বঙ্গীয় পরিষদের সভাপতি জয়দীপ স্যানাল জানান, বিশ্ব জননী তিনি সংকট নাশিনী, তিনিই সকল সংকট নাশ করে, ধরাতে অশান্তি দূর করে, সুখ-শান্তি বিরাজমান রাখবেন, নতুন আলোয় উদ্ভাসিত করবেন আমাদের জীবন - এমনটাই আমাদের প্রত্যাশা।

দেশের মাটিতে পা রাখতে না পারলেও কানাডায় সনাতন ধর্মাবলম্বী প্রবাসী বাঙ্গালিরা দুর্গাপূজাকে ঘিরে মেতে উঠেছেন আনন্দ উৎসবে। নব প্রজন্মের কাছে তুলে ধরছেন আবহমান বাংলার কৃষ্টি ইতিহাস, ঐতিহ্য ও জাতীয় সত্তাকে। দেবীর পায়ে অঞ্জলি আর দর্শনের পাশাপাশি সুখ ও শান্তি কামনা করে প্রার্থনা করছেন বিশ্ববাসীর।