দূতাবাস 'দালালমুক্ত' করার দাবিতে রোমে অবস্থান কর্মসূচি পালন

প্রকাশ: ২৮ জুলাই ২০২০     আপডেট: ২৮ জুলাই ২০২০   

ইউসুফ আলী, রোম (ইতালি) থেকে

দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের অবিলম্বে প্রত্যাহার এবং দালালমুক্ত করার দাবিতে ইতালির রোমে স্থায়ী দূতাবাসের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন প্রবাসীরা। দালাল নির্মুল ও দূতাবাস দুর্নীতি মুক্তকরণ কমিটির উদ্যোগে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।

চার দশকে ইতালিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে এটাই প্রথম কোন আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ কর্মসূচি। কর্মসূচিতে ১১ দফা দাবি নিয়ে অর্ধ শতকের বেশি প্রবাসী দূতাবাসের সামনে অবস্থান নেন। কর্মসূচির শেষ পর্যায়ে এটি বিক্ষোভ সমাবেশে রূপ নেয়।

কর্মসূচির প্রধান উদ্যোক্তা ইতালি আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এমএ রব মিন্টু এ সময় বলেন, ‌‘আমাদের আন্দোলন দূতাবাসের বিরুদ্ধে নয়, দূতাবাসের অসৎ, দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে, দালালদের বিরুদ্ধে। স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ নেতার আত্মীয়ের যোগসাজসে দূতাবাস দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। প্রবাসীরা চরমভাবে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন এসব অসাধু কর্মকর্তাদের হয়রানিতে। দূতাবাসে প্রবাসীদের ন্যায্য সেবা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।’

তবে অবস্থান কর্মসূচি এবং দুর্নীতির অভিযোগ সম্পর্কে রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার সমকালকে বলেন, ‘দুর্নীতির অভিযোগ ঢালাওভাবে করলেই হয় না, সুনির্দিষ্টভাবে লিখিতভাবে জানাতে হয়। দালাল বললেও স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। কেবল বলছে, দালালী বন্ধ করতে হবে। কে করছে, তাকে বলে না কেন? এর সাথে দূতাবাসের কি সম্পর্ক?’

রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, ‘ইতালি আওয়ামী লীগের আসন্ন সম্মেলনকে সামনে রেখে দলীয় বিবাদ শুনেছি, আর সেটাকে নিয়ে আসছে দূতাবাসের ওপর। তিনি বলেন, দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রবাসীদের সেবা নিয়ে সার্বক্ষণিক কাজ করছে। গত দেড় মাসে ১০ হাজারের বেশি সেবাপ্রাথীকে সেবা প্রদান করেছে দূতাবাস। একজন অনিয়মিত প্রবাসীও যেন বৈধতার আবেদন থেকে বঞ্চিত না হয়, সে লক্ষ্যে বন্ধের দিনও দূতাবাস খোলা রেখে সেবা দিয়ে যাচ্ছে।’

'দালাল নির্মুল ও দূতাবাস দুর্নীতি মুক্তকরণ কমিটি'র আহ্বায়ক আফতাব বেপারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অবস্থান কর্মসূচিতে অন্যান্যের মধ্যে কে এম লোকমান হেসেন, আব্দুর রব ফকির, আলমগীর হোসেন, মাহাবুব প্রধানসহ অনেকে বক্তব্য রাখেন।

কর্মসূচাাতে বক্তারা বলেন, ‘দূতাবাসের কিছু অসাধু কর্মকর্তা দুর্নীতির সাথে সম্পৃক্ত। রাষ্ট্রদূত এসব দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের প্রশ্রয় দিয়ে প্রবাসীদের হয়রানিতে অংশীদার হয়েছেন।’ এ জন্য বক্তারা রাষ্ট্রদূতের অবিলম্বে প্রত্যাহার দাবি করেন।

ঘোষিত ১১ দফা দাবির মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- ইতালিতে বৈধতা পেতে আগামী ১০ আগস্টের মধ্যে অনিয়মিত অভিবাসীদের পাসপোর্ট সমস্যার সমাধান; ইতালিফেরত ১২৫ বাংলাদেশিকে অবিলম্বে ফিরিয়ে আনা; এপয়েন্টমেন্ট ছাড়া টোকেন ভিত্তিতে সেবা প্রদান; চিহ্নিত পাসপোর্ট দালালদের দূতাবাসে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা; দালালদের সহযোগী কর্মচারীদের প্রত্যাহার করা।