ডেলটার মতো প্রাণঘাতী হতে পারে ওমিক্রন

০৮ ডিসেম্বর ২১ । ০০:০০

সমকাল ডেস্ক

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন ডেলটার মতো প্রাণঘাতী হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞরা। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা বলেছেন, ওমিক্রন নিয়ে এখনও পর্যাপ্ত তথ্য তাদের হাতে নেই, তবে অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, ওমিক্রন বিশ্বকে আবারও ভোগান্তিতে ফেলবে। এদিকে, করোনাভাইরাস মহামারিতে স্বাস্থ্যসেবা বিঘ্নিত হওয়ায় আগের বছরের তুলনায় ২০২০ সালে ম্যালেরিয়ায় ৬৯ হাজার বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। তবে পরিস্থিতি এর চেয়েও খারাপ হওয়ার আশঙ্কা থাকলেও তা এড়ানো গেছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এ ছাড়া করোনা চিকিৎসায় আক্রান্ত ব্যক্তির রক্ত থেকে প্লাজমা নিয়ে যে চিকিৎসা করা হয়, তা না করার জন্য মত দিয়েছে সংস্থাটি। দুনিয়াজুড়ে কভিড মহামারি চলাকালে রেকর্ড পরিমাণ সম্পদ বেড়েছে বিলিয়নেয়ার ও মিলিয়নেয়ারদের। মঙ্গলবার প্রকাশিত এক সমীক্ষা প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এমন তথ্য। খবর এএফপি ও দ্য গার্ডিয়ানের।

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন ডেলটার চেয়েও সহজে সংক্রমিত হয় বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। এই তথ্যের ওপর ভিত্তি করে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওমিক্রন সারাবিশ্বে পুরোপুরি ছড়িয়ে গেলে তা ডেলটার মতো বা ডেলটার চেয়েও প্রাণঘাতী হয়ে উঠতে পারে।

ডব্লিউএইচওর ম্যালেরিয়াবিষয়ক বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছর বিশ্বজুড়ে যে ৬ লাখ ২৭ হাজারের বেশি মানুষ ম্যালেরিয়ায় প্রাণ হারিয়েছে, তার অধিকাংশই আফ্রিকার দরিদ্রতম অংশে বসবাসকারী শিশু। ২০১৯ সালে বিশ্বে ম্যালেরিয়ায় মৃত্যু ছিল ৫ লাখ ৫৮ হাজার। অন্যদিকে মহামারি শুরুর পর এখন পর্যন্ত আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের হিসাবে মহাদেশটিতে কভিডে প্রাণ গেছে মোট ২ লাখ ২৪ হাজার মানুষের। ডব্লিউএইচও বলছে, ২০২০ সালে ম্যালেরিয়ায় আগের বছরের তুলনায় যে অতিরিক্ত মৃত্যু দেখা গেছে, তার প্রায় দুই-তৃতীয়াংশই হয়েছে করোনাভাইরাস বিধিনিষেধের কারণে ম্যালেরিয়া প্রতিরোধ, শনাক্ত ও চিকিৎসা ব্যাহত হওয়ার কারণে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি পরামর্শ প্রতিবেদন ব্রিটিশ চিকিৎসা সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবেদনে হু বলেছে, 'প্লাজমা করোনা সারিয়ে তুলে না অথবা কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাস দেওয়ার প্রয়োজনীয়তাকে হ্রাস করে দেয় না।' প্লাজমা চিকিৎসার খরচ বেশি ও এতে অনেক বেশি সময়ও লাগে বলে জানিয়েছে হু। এ কারণে যাদের কভিডের মৃদু বা মাঝারি ধরনের লক্ষণ রয়েছে, তাদেরকে এ চিকিৎসা না দেওয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

© সমকাল ২০০৫ - ২০২২

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মোজাম্মেল হোসেন । প্রকাশক : আবুল কালাম আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ | ই-মেইল: samakalad@gmail.com