একান্নবর্তী বাংলাদেশ

অস্থির সময়ে ভিন্নধর্মী উদ্যোগ

০৬ জুন ২০২০

সজীব রায়

করোনাকালীন সময়ে কর্মহীন অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেশের বিভিন্ন মাধ্যমের শিল্পীদের অংশগ্রহণে আয়োজন করা হয় ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠান একান্নবর্তী বাংলাদেশ। এই উদ্যোগে সম্পূর্ণ স্বেচ্ছাশ্রমে শিল্পীরা ঈদুল ফিতরে নানা ধরনের পারফর্ম করেন এবং একই সঙ্গে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর বার্তা পৌঁছে দেন। অনুষ্ঠান চলাকালীন দেশে প্রথম ক্রাউড ফান্ডিং প্ল্যাটফর্ম 'একদেশ'-এর মাধ্যমে নির্বাচিত প্রতিষ্ঠানের জন্য অর্থ সংগ্রহ করা হয়। দেশের বাইরে থেকেও অসংখ্য মানুষ এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে পাশে দাঁড়ায়। আর্থিক অনুদান প্রদান করে একদেশ প্ল্যাটফর্মে (যঃঃঢ়ং://বশফবংয.বশঢ়ধু.মড়া.নফ/)।

এই উদ্যোগের পরিকল্পনা করেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে ছিলেন এটুআই-এর হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট মিডিয়া ম্যানেজার পূরবী মতিন। এছাড়া উদ্যোগী সংস্থাগুলোর মধ্যে ছিল সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, স্টার্টআপ বাংলাদেশ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, এটুআই, ইউনিসেফ, ইউএনডিপি বাংলাদেশ, ইউএসএইড, জন হপকিন্স সেন্টার ফর কমিউনিকেশনসহ কিছু সরকারি-বেসরকারি সংস্থা।

গত ২৯ মে শুক্রবার বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ৭১-এ সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে শুরু হয়ে অনুষ্ঠানটি চলে দেড় ঘণ্টা। এ ছাড়াও অনুষ্ঠানটি একযোগে সম্প্রচার হয় দৈনিক সমকালের অনলাইনসহ প্রায় ২৫টি ফেসবুক পেইজ ও দেশ ও দেশের বাইরের ওয়েব ও আইপি টিভিতে। দেশ-বিদেশের একরাশ তারকার অংশগ্রহণে অনুষ্ঠানটিতে মিউজিক ভিডিও, নাটক, পেইন্টিং, কবিতা আবৃত্তি, ম্যাজিক ও সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আলোচনা স্থান পায়।

একান্নবর্তী বাংলাদেশের উদ্দেশ্য ছিল করোনাভাইরাসের কারণে আর্থিক সমস্যায় জর্জরিত মানুষের আর্থিক সঙ্গতি পুনরুদ্ধার ও কর্মহীন শিল্পীদের জীবন চালিয়ে নেওয়ার জন্য কিছু করা।

একান্নবর্তী বাংলাদেশে প্যারিস থেকে চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদ, লন্ডন থেকে নৃত্যশিল্পী আকরাম খান, সোহানী আলম, রানা বেগম, কবি শামীম আজাদ, প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব লেস্টার সিটির ফুটবলার হামজা চৌধুরী এবং নিউইয়র্ক থেকে ফুয়াদ আল মুক্তাদির, রিচি সোলায়মানসহ অনেকেই যোগ দেন।

এই অনুষ্ঠানে ঢাকা থেকে অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর, জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল, অভিনয়শিল্পী জয়া আহসান, ইরেশ যাকের, নাট্যনির্দেশক নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু, কবি কামাল চৌধুরী, শিমূল ইউসুফ, আবুল হায়াত, চঞ্চল চৌধুরী, মোশাররফ করিম, জাহিদ হাসান, মিথিলা, সাজু খাদেম, ফিমাসহ অন্যরা যোগ দেন। সংগীত পরিবেশন করেন নকিব খান, ফুয়াদ, পার্থ বড়ূয়া, শাফিন আহমেদ, মানাম আহমেদ, বাপ্পা মজুমদার, এলিটা করিম, এমিল, কণা, সন্ধিসহ আরও অনেকে। নৃত্যে অংশ নেন রতন, নাদিয়া, বিজরি ও রিচি। করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষ আয়োজন 'আশার খবর' উপস্থাপন করেন নবনীতা চৌধুরী।

লকডাউন পরিস্থিতিতে বড় আকারের অনুষ্ঠান আয়োজন ছিল রীতিমতো অসম্ভব ব্যাপার। সেই অসম্ভবকে সম্ভব করলেন তারকা শিল্পী ও আয়োজকরা। মুক্তির গান বা স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীদের মতো তারাও প্রমাণ করলেন যতই দুর্যোগ, মহামারি, ঝড়-ঝাপ্টা আসুক না কেন, মানুষই দাঁড়ায় মানুষের পাশে। মানুষ হচ্ছে সেই শুভবোধের উৎস, যারা চির তমসাকে দূর করতে পারে নিজ শক্তিবলে। শিল্পীরা জানিয়ে গেলেন মানবিকতার প্রতি আস্থা রেখে সবাইকে সাহসের সঙ্গে এই সময়টুকু পার হতে হবে। সুদিন আসবেই। া

© সমকাল ২০০৫ - ২০২০

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

টাইমস মিডিয়া ভবন (৫ম তলা) | ৩৮৭ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৫৫০২৯৮৩২-৩৮ | বিজ্ঞাপন : +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ (প্রিন্ট), +৮৮০১৮১৫৫৫২৯৯৭ (অনলাইন) | ইমেইল: samakalad@gmail.com (প্রিন্ট), ad.samakalonline@outlook.com (অনলাইন)