চিঠিপত্র

২৯ জানুয়ারি ২০১৮

অনার্স কোর্স চাই

মেলান্দহ সরকারি কলেজটি ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত। ১ জুলাই ১৯৮৭ সাল থেকে কলেজটি জাতীয়করণ করা হয়। শুরু হয় সরকারি মেলান্দহ কলেজের নতুন যাত্রা। সে সময় থেকে কলেজটিতে ছাত্রছাত্রী ছিল অনেক। তখনকার সময়ে মেলান্দহ উপজেলায় একমাত্র সরকারি কলেজ। শিক্ষার মান উন্নত হওয়ার কারণে অনেক অভিভাবক সচেতন হয়েছেন। তাদের ছেলেমেয়েদের উন্নত শিক্ষায় শিক্ষিত করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে থাকেন। বর্তমানে কলেজটিতে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণিতে বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা, ডিগ্রি (পাস) ও সার্টিফিকেট কোর্স শাখা চালু আছে। এই সরকারি কলেজটিতে অনার্স কোর্স চালু না থাকায় ছেলেমেয়েদের যেতে হচ্ছে জামালপুর সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজ, সরকারি জাহেদা সফির মহিলা কলেজ ও ময়মনসিংহে পড়ালেখা করার জন্য। অনেক মেধাবী ছাত্রছাত্রী অর্থের অভাবে দূরে গিয়ে পড়ালেখা করার মতো অর্থ দিতে পারে না। ফলে মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের উচ্চশিক্ষা এখানেই থেমে যায়। তাদের ভাগ্যে আর অনার্স করা হয় না। তাই মেলান্দহ সরকারি কলেজে অনার্স কোর্স চালু করার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর প্রতি আকুল আবেদন করছি।

মাহফুজুর রহমান খান

চিনিতোলা, মেলান্দহ, জামালপুর

মুন্সীগঞ্জে সরকারি মেডিকেল কলেজ হোক

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান বিষয়ে অধ্যয়নের আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে। বিজ্ঞান বিভাগে পড়াশোনার পর বিজ্ঞানভিত্তিক পেশাদার শিক্ষার সীমিত সুযোগের জন্য এমন অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। বেশি সংখ্যায় মেডিকেল কলেজ স্থাপন এ অবস্থার উত্তরণ ঘটাতে পারে। নির্বাচিত সরকারের অঙ্গীকার, শহর ও গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়া। কিন্তু পল্লী অঞ্চলে নিয়োজিত চিকিৎসকদের ধরে রাখা একটা সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ যদি পর্যাপ্ত সংখ্যক মানসম্পন্ন চিকিৎসক তৈরি করতে না পারে তবে এ অবস্থার পরিবর্তন হবে না। এ সমস্যা সমাধানের একটিই পথ, প্রতিটি জেলা শহরে অন্তত একটি সরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনা করা। ঢাকা মহানগরের সবচেয়ে নিকটতম জেলা হচ্ছে মুন্সীগঞ্জ। এটা বৃহৎ ঢাকা জেলার অংশ। রাজধানী ঢাকার জিরো পয়েন্ট থেকে সড়কযোগে দেড় ঘণ্টায় মুন্সীগঞ্জ শহরে পৌঁছা যায়। ঢাকা মহানগরের উত্তর প্রান্ত থেকে দক্ষিণ প্রান্তে সড়কপথে পৌঁছাতে দুই ঘণ্টারও বেশি সময় প্রয়োজন হয়। ঢাকার সন্নিকটে মুন্সীগঞ্জ হচ্ছে সবচেয়ে উৎকৃষ্ট স্থান, যেখানে একটি সরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপন ও পরিচালনা করা যায়। এটা মুন্সীগঞ্জ জেলা ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের লোকজনের স্বাস্থ্যসেবা বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে। ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের পাশে মুন্সীগঞ্জ জেলায় খুব সহজেই একটা সরকারি মেডিকেল কলেজ পরিচালনা সম্ভব। চিকিৎসা শিক্ষা প্রদানের জন্য সেখানে কাজ করার জন্য প্রস্তুত চিকিৎসক শিক্ষকের অভাব হবে না। এ সুবিধাটি গ্রহণ করে মুন্সীগঞ্জে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে একটি ৫০০ শয্যার মেডিকেল এবং একটি পূর্ণমাত্রার সরকারি মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য সরকারের এখনই উদ্যোগ গ্রহণ করা আবশ্যক।

মো. আশারাফ হোসেন

নাসিমকুটির, দেওভোগ, মুন্সীগঞ্জ

© সমকাল 2005 - 2018

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি । প্রকাশক : এ কে আজাদ

১৩৬ তেজগাঁও শিল্প এলাকা, ঢাকা - ১২০৮ । ফোন : ৮৮৭০১৭৯-৮৫, ৮৮৭০১৯৫, ফ্যাক্স : ৮৮৭০১৯১, ৮৮৭৭০১৯৬, বিজ্ঞাপন : ৮৮৭০১৯০ । ইমেইল: info@samakal.com