বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, পদ্মা সেতু হচ্ছে বলে আমাদের গায়ে জ্বালা হচ্ছে না। পদ্মা সেতু থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করে বিদেশে সম্পদ করছে বলেই বিএনপির গায়ে জ্বালা হচ্ছে। এটা আমাদের টাকা, জনগণের টাকা। এভাবে সব মেগা প্রকল্প থেকেই তারা হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করেছে। এই লুটপাট ও পাচারের জন্যই গায়ে জ্বালা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে ‘কালজয়ী রাষ্ট্রনায়ক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। ‘পদ্মা সেতুর কারণে সারাদেশের মানুষ খুশি হলেও বিএনপি ও তাদের দোসরদের বুকে অনেক জ্বালা সৃষ্টি হয়েছে’- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এ রকম বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় কথাগুলো বলেন তিনি।

মেট্রোরেল প্রকল্পের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল ইসলাম অভিযোগ করেন, কিছুক্ষণ পরপর স্টেশন। এর কোনো প্রয়োজন নেই। শেওড়াপাড়ায় একটা স্টেশন, এরপর আগারগাঁও, তারপর সংসদ ভবনের পাশে আরেকটা, এরপর ফার্মগেটে আরেকটা। এত কাছাকাছি স্টেশন পৃথিবীর কোথাও নেই। কারণটা কী? কারণ একটাই- এটা (স্টেশন) করলে টাকা পাওয়া যাবে। তাদের মূল লক্ষ্যই হচ্ছে দুর্নীতি, লুট, দেশকে লুটে নেওয়া।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে আমরা যে সংকটে আছি, এই সংকট আমাদের অস্তিত্বের সংকট। এ সংকটে যদি আমরা জয়যুক্ত হতে না পারি, তাহলে আমাদের গণতন্ত্র বলুন, অর্থনীতি বলুন, সমাজ বলুন- সব শেষ হয়ে যাবে।

তিনি বলেন, এই সরকার আমাদের অর্জনগুলো ধ্বংস করে দিয়েছে। আমাদের ঋণের গভীরে নিয়ে গেছে। আমাদের পুরোপুরি ঋণগ্রস্ত করে ফেলেছে। আমরা চাকচিক্য দেখে কিছু বুঝতে পারছি না। আমাদের সরকার তো গদগদ হয়ে গেছে- সারাক্ষণ শুধু পদ্মা সেতু, পদ্মা সেতু, পদ্মা সেতু। পদ্মা সেতু তো কারও সম্পত্তি দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে না। পদ্মা সেতু এ দেশের মানুষের পকেটের টাকা দিয়েই করা হচ্ছে। সমস্যাটা হচ্ছে যেটা করা হচ্ছিল ১০ হাজার কোটি টাকা দিয়ে, সেটা এখন ৩০ হাজার, ৪০ হাজার কোটি টাকায় পৌঁছেছে।

জিয়া পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল কুদ্দুসের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক মাহবুব উল্লাহ, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী এম সলিমুল্লাহ খান, অধ্যাপক আবদুল লতিফ মাসুম প্রমুখ বক্তব্য দেন।