করোনাভাইরাস আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ভালো আছেন এবং সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন তার চিকিৎসক আলম মামুন। তিনি বলেছেন, এখন পর্যন্ত খালেদা জিয়ার যে শারীরিক অবস্থা, তাতে বাসায় রেখেই তার চিকিৎসা সম্ভব।

মঙ্গলবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের বাসভবন ফিরোজায় খালেদা জিয়াকে দেখে এসে সংবাদমাধ্যমে তিনি এসব কথা বলেন। বিকেল ৩টা থেকে এক ঘণ্টা ধরে তিনি করোনা আক্রান্ত খালেদা জিয়ার চিকিৎসাসেবা দেন। এ সময়ে বায়োকেমিক্যাল টেস্টের জন্য টেকনোলজিস্ট শরিফ উদ্দিন সবুজ খালেদা জিয়ার রক্তের নমুনা সংগ্রহ করেন।

ডা. মামুন বলেন, খালেদা জিয়ার করোনার কোনো উপসর্গ নেই। পরীক্ষার জন্য তার রক্তের নমুনা নেওয়া হয়েছে। তার রক্তে কোনো ঝুঁকি আছে কিনা জানার জন্য বায়োকেমিক্যাল টেস্ট করা হয়েছে। রিপোর্ট এলে পর্যালোচনা করা হবে। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা তত্ত্বাবধান করছেন তার পুত্রবধূ ডা. জোবাইদা রহমান। তিনি দেশ-বিদেশের চিকিৎসকদের সঙ্গে পরামর্শ করে নির্দেশনা দিচ্ছেন। টিমওয়ার্কের মাধ্যমে ম্যাডামের চিকিৎসা চলছে।

এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও জানান, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। এরই মধ্যে তার চিকিৎসাও শুরু হয়েছে। সারাদেশের মানুষ দোয়া করছে, তিনি যেন সুস্থ হয়ে ওঠেন। তিনি আবারও দেশবাসীর কাছে খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি চেয়ে দোয়া-প্রার্থনা করার আহ্বান জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা সব সময় খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি চেয়ে আসছি। আমি গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে ধন্যবাদ জানাতে চাই। তিনি এই করোনার মধ্যে অবিলম্বে খালেদা জিয়ার পূর্ণাঙ্গ জামিন চেয়েছেন। আমরা তার এ বক্তব্যের সঙ্গে সম্পূর্ণ একমত।

মন্তব্য করুন