ষড়যন্ত্রকারীদের অপচেষ্টার বিরুদ্ধে সতর্ক থাকতে হবে: কাদের

প্রকাশ: ০৪ আগস্ট ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

ওবায়দুল কাদের- ফাইল ছবি

ওবায়দুল কাদের- ফাইল ছবি

উন্নয়ন-অগ্রযাত্রা বিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের অব্যাহত অপচেষ্টার বিরুদ্ধে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ষড়যন্ত্রের কুশীলবরা শুধু রূপ পরিবর্তন করে, হারায় না। এই ষড়যন্ত্রকারীদের অব্যাহত অপচেষ্টা আজও চলমান। সবাইকে সচেষ্ট থাকতে হবে, সতর্ক থাকতে হবে উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা বিরোধী এ অপশক্তির ষড়যন্ত্র সম্পর্কে।

মঙ্গলবার সংসদ ভবনে সরকারি বাসভবন থেকে সর্ব ইউরোপীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত ‘বাংলাদেশ এই সময়ে’ শীর্ষক অনলাইন আলোচনায় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, আগস্ট মাস মানে হারানোর বেদনা। হায়েনাদের অট্টহাসি আর ষড়যন্ত্রের গন্ধ। যে বুলেট ১৫ আগস্ট রাতের শেষ প্রহরে হানা দিয়েছিল সেই বুলেট ২১ আগস্ট আরো নির্মম হয়ে হানা দিয়েছিল বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে। ১৫ আগস্টের প্রাইম টার্গেট ছিলেন বঙ্গবন্ধু, আর ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রাইম টার্গেট ছিলেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নের অভিযাত্রায় সম্প্রতি যুক্ত হয়েছে দুটি চ্যালেঞ্জ। বৈশ্বিক মহামারি করোনার সংক্রমণ রোধ ও মানুষের সুরক্ষা এবং দেশের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে বন্যা। মানবিকতার উদাহরণ ও আস্থার শেষ ঠিকানা শেখ হাসিনার দিনরাত পরিশ্রম ও বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করা হচ্ছে।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিশ্ব আজ কঠিন সময় পার করছে। উত্তর গোলার্ধ থেকে দক্ষিণ গোলার্ধ, বিষুব রেখার প্রান্তজুড়ে ঘন অমানিশা। করোনা মহামারি স্থবির করে দিয়েছে প্রাণোচ্ছল পৃথিবী। মহামারির কাছে বিশ্বের দেশগুলো অসহায় সমর্পণ করেছে। হিমশিম খাচ্ছে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও আক্রান্ত মানুষকে বাঁচাতে। অনেক সীমাবদ্ধতা স্বত্ত্বেও বাংলাদেশ অসীম সাহসিকতায় মোকাবিলা করছে এ মহামারি।

তিনি বলেন, ‘আমাদের শক্তি আমাদের মনোবল। আমরা এই মনোবল অর্জন করেছি বারবার মৃত্যুর মঞ্চ থেকে ফিরে আসা মৃতুঞ্জয়ী এক সাহসী ও মানবিক নেতৃত্ব শেখ হাসিনার কাছ থেকে। যিনি ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে সৃষ্টির পতাকা ওড়ান। হৃদয় যার বাংলাদেশের মতো উদার। তার দক্ষতা, দূরদর্শিতা এবং সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের মধ্য দিয়ে করোনার সংক্রমণ রোধে কাজ করছে সরকার।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, জনবহুল ও ঘনবসতিপূর্ণ দেশ হিসেবে বাংলাদেশ পার্শ্ববর্তী অনেক দেশ থেকে স্রষ্টার অপার রহমতে ভালো অবস্থানে রয়েছে। তবে এ নিয়ে আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই। শেখ হাসিনার সরকার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ ও মানুষের সুরক্ষায় দিনরাত অবিরাম কাজ করছে। এই অবিরাম প্রচেষ্টায় সবার সম্মিলিত ও সমন্বিত প্রয়াস জরুরি।

তিনি বলেন, সম্প্রতি স্বাস্থ্যখাতের বিভিন্ন অনিয়মসহ অন্যান্য খাতের অনিয়মের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনার দৃঢ় অবস্থান জনমনে নতুন করে প্রত্যাশার আলো জ্বালিয়েছে। দলীয় পরিচয় থাকলেও অনিয়ম করে কেউ ছাড় পাবেন না- এ কথা আজ স্পষ্ট। সমৃদ্ধ দেশ বিনির্মাণ ও সুশাসন নিশ্চিত করতে শেখ হাসিনার চলমান শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত থাকবে।

কাদের বলেন, দুর্যোগে প্রবাসী আয় ও বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দেশকে ঘুরে দাঁড়ানোর শক্তি জোগাচ্ছে। তৈরি পোশাক শিল্পের ক্রয় আদেশ বাতিলের প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানদের সঙ্গে কথা বলেছেন। এরই মাঝে ক্রয় আদেশ আসতে শুরু করেছে। অর্থনীতি আকস্মিক স্থবিরতা কাটিয়ে পুরনো ছন্দে ফিরতে শুরু করেছে।

তিনি বলেন, সম্প্রতি ইতালি বিএনপির এক নেতার এক বক্তব্যে ইতালি প্রবাসীদের মাঝে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। বিএনপি নামের দলটি সরকারের কোনো ইতিবাচক প্রয়াস দেখতে পায় না। তারা সমালোচনা আর মিথ্যাচারের বৃত্তে আবর্তিত হচ্ছে। দিনের আলোতে-দেখতে পায় রাতের অন্ধকার। প্রেস ব্রিফিং আর নেতিবাচকতার কাঁদামাটিতে আটকে আছে তাদের রাজনীতি।

অনলাইন আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সর্ব ইউরোপীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি এন. নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান প্রমুখ।