করোনা সংক্রমিত হলেও অনেকেই স্বাদ ও ঘ্রাণশক্তি হারিয়ে ফেলছেন। কেউ কেউ আবার মোটেও হারাচ্ছেন না। করোনা রোগীদের উপসর্গের মধ্যে কেন এই তারতম্য, তার সম্ভাব্য কারণ জানা গেছে গবেষণায়।

গবেষণায় দেখা গেছে, এই তারতম্যের জন্য মানবদেহের বিশেষ দু’টি জিনের অতি সক্রিয়তা দায়ী । মানুষের স্বাদক্ষমতা ও ঘ্রাণশক্তির ক্ষেত্রে এই জিন দু’টির ভূমিকা রয়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজারের  প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গবেষকরা দেখেছেন, এই জিন দু’টির 'ক্রোমোজোম ৪' নামের বিশেষ একটি অংশের অতি সক্রিয়তার জন্যই কোভিডে সংক্রমিতদের মধ্যে স্বাদ ও ঘ্রাণশক্তি হারিয়ে ফেলার সম্ভাবনা অন্তত ১১ শতাংশ বেড়ে যায়।

সব করোনা রোগীর ক্ষেত্রে এই জিনদু’টির ওই বিশেষ অংশটি সে ভাবে সক্রিয় হয়ে ওঠে না । এ কারণে সংক্রমণের পর সকলেই স্বাদক্ষমতা ও ঘ্রাণশক্তি হারিয়ে ফেলেন না। সেটা কারও কারও ক্ষেত্রে হয়।

যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের করোনা আক্রান্তদের মধ্যে স্বাদ ও ঘ্রাণশক্তি হারিয়ে ফেলা প্রায় ৭০ হাজার রোগীর জিনোম পরীক্ষার প্রেক্ষিতেই গবেষণার ফল পাওয়া গেছে।  গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান গবেষণা পত্রিকা ‘নেচার জেনেটিক্স’-এ। গবেষণাপত্রটি পিয়ার রিভিউয়ের পরেই প্রকাশিত হয়েছে। যা জিন বিশেষজ্ঞদের দিয়েই করানো হয়েছে।

তবে বিশেষজ্ঞদের একাংশ এটাও জানিয়েছেন, এই ধরনের বহু গবেষণা হচ্ছে। কোনও একটি গবেষণার ফল যা জানাচ্ছে, অনেক ক্ষেত্রেই অন্য গবেষণার ফলে তার বিপরীত চিত্র বেরিয়ে আসছে। অল্প সময়ে কাজ করতে গিয়ে করোনা নিয়ে গবেষণার মান অন্য গবেষণার মানের চেয়েও কিছুটা নেমে গেছে। অনেক সময় পিয়ার রিভিউ হওয়া কোনও গবেষণাপত্র নিয়েও তাই বিতর্ক দানা বাঁধছে। এই গবেষণার ফল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (‘হু’) বা আমেরিকার ‘সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন' (সিডিসি) অনুমোদন করেছে কি না তা এখনও জানা যায়নি।

মানবদেহের ওই জিন দু’টির বিশেষ অংশের (ক্রোমোজোম ৪) সক্রিয়তা বুঝতে যারা কোভিডে সংক্রমিত হননি, তাদেরও জিনোম পরীক্ষা করেছেন গবেষকরা।  তারা করোনা আক্রান্তদের দেহে জিনদু’টির ওই বিশেষ অংশের আচরণ, কাজকর্ম দেখেছেন। জিন দু’টির একটির নাম— ‘ইউজিটি২এ১’। অন্যটি, ‘ইউজিটি২এ২’। গবেষণায় দেখা গেছে, সব কোভিড রোগীর ক্ষেত্রেই এই জিন দু’টির বিশেষ অংশটি অতি সক্রিয় হয়ে উঠছে না। যাদের ক্ষেত্রে এই অতি সক্রিয়তা দেখা গেছে, তাদেরই স্বাদ ও ঘ্রাণশক্তি হারানোর সম্ভাবনা বেড়ে গেছে। আর যে কোভিড রোগীদের দেহে এই জিন দু'টির বিশেষ অংশটিকে অতি সক্রিয় হয়ে উঠতে দেখা যায়নি, তারা সংক্রমিত হয়েও স্বাদক্ষমতা ও ঘ্রাণশক্তি ততটা হারাননি।

গবেষকদের ধারণা, এই তারতম্যের কারণ হতে পারে জিন দু’টির জন্য মানবদেহে তৈরি হওয়া উৎসেচকগুলি। সার্স-কোভ-২ ভাইরাস সেই উৎসেচকগুলির কাজ কী ভাবে কতটা বদলে দিচ্ছে, তার উপরেই হয়তো নির্ভর করে এই তারতম্য। কিন্তু এ ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত ভাবে কিছু জানা যায়নি বলে গবেষকরা জানিয়েছেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, আগামী দিনে এই সংক্রান্ত গবেষণায় হয়তো এই কারণগুলি জানা যাবে।