শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসেই খাবারের আয়োজন করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের হ্যান্ডবল গ্রাউন্ডের মাঠে রান্না করে খাবার আয়োজন করছে তারা।

মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের হ্যান্ডবল গ্রাউন্ডে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা নিজেরাই চুলা জ্বালিয়ে খাবারের আয়োজন করছে। এজন্য তারা বাহিরে থেকে পাতিলসহ প্রয়োজনীয় জিনিস ভাড়া করে এনেছে এবং বাহিরে থেকে বাবুর্চি এনেছে তারা৷ রাত বারোটার দিকে প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থী একসঙ্গে সেখানে বসে খাবার খায়।

এবিষয়ে আন্দোলনরত ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস আঁখি সমকালকে বলেন, গত রোববার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ক্যাম্পাস ও হল বন্ধ ঘোষণা করেছিল৷ কিন্তু আমরা শিক্ষার্থীরা এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে হলে অবস্থান করছি এবং আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। এদিকে শিক্ষার্থীরা হলে অবস্থান করলেও প্রশাসন আমাদের ডাইনিং এবং ক্যান্টিন বন্ধ করে দেয়। এজন্য আমরা নিজেরাই চাঁদা তুলে এবং সিনিয়র ভাইদের সহযোগিতা নিয়ে ক্যাম্পাসে খাবার আয়োজন করেছি।

তিনি আরও জানান, আন্দোলন যতদিন চলবে, আমাদের এই আয়োজন চালিয়ে যাবার চেষ্টা থাকবে।


এদিকে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা আমরণ অনশনের ঘোষণা দিয়েছে। পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাইমিনুল বাশার সংবাদ সম্মেলন শেষে সমকালকে বলেন, আমরা কালকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত অপেক্ষা করবো। এই সময়ের মধ্যে উপাচার্য স্বেচ্ছায় পদত্যাগ না করলে আমরা আমরণ অনশনে যাবো।

তিনি আরও বলেন, এই উপাচার্যের পদত্যাগ না করা পর্যন্ত অনশনে চালিয়ে যাবো।

এর আগে গত রোববার তিন দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া আইআইসিটি ভবনে অবরুদ্ধ করলে পুলিশ লাঠিচার্জ, রাবার বুলেট এবং সাউন্ড গ্রেনেড ছুঁড়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে। এই ঘটনায় প্রায় ৪০ জন শিক্ষার্থী ও ৫-৭ জন শিক্ষক-কর্মকর্তা আহত হয়।

পরে শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করে সোমবার সকাল থেকে রাত আড়াইটা পর্যন্ত ক্যাম্পাসে এবং উপাচার্যের বাসভবনের সামনে আন্দোলন করে এবং মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে।