প্রতি বছর বিশ্বজুড়ে অসংখ্য প্রাণ কেড়ে নেয় স্ট্রোক।  আজকাল অল্প বয়সেও অনেকে স্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছেন। তবুও এ রোগ নিয়ে অনেকে সচেতন নন।  বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কিছু কিছু অভ্যাস স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। যেমন-

অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস : স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস স্ট্রোকের ঝুঁকি আশি শতাংশ কমাতে পারে। অতিরিক্ত লবণ, চিনি ও স্নেহপদার্থ যুক্ত খাবার স্ট্রোকের আশঙ্কা বাড়ায়। অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ ও কোলেস্টেরল ডেকে আনতে পারে বড় বিপদ। এজন্য যারা আগে থেকেই ঝুঁকি সম্পন্ন, তাদের ডিমের কুসুম ও মাংস খাওয়া ছাড়তে হতে পারে।

অলসতা : শরীরচর্চার অভাব ও সারাদিন শুয়ে-বসে থাকা ডেকে আনে এই রোগ। অলস জীবনযাপনে ওজন বাড়ে, পেশি ও হাড়ের সক্ষমতা কমে। বিপাকের হারেও এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে।

ধূমপান : ধূমপানের ফলে শরীরে অসংখ্য ক্ষতিকর পদার্থ প্রবেশ করে। এমনকি, পরোক্ষ ধূমপানেও প্রবল ক্ষতি হয় শরীরের। এর ফলে রক্তে অক্সিজেনের মাত্রাও কমে যায়। এতে ফুসফুসের পাশাপাশি সংবহনতন্ত্রের ক্ষতি হয়।

অ্যালকোহল : অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপের অন্যতম কারণ। অ্যালকোহল শিরা ও ধমনীর স্থিতিস্থাপকতাকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। যা স্ট্রোকের অন্যতম প্রধান কারণ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই চারটি কারণ ছাড়াও স্ট্রোকের অন্যতম কারণ হল সচেতনতার অভাব ও নিজের স্বাস্থ্যের প্রতি অবহেলা করা। যাদের উচ্চ রক্তচাপ, কোলেস্টেরল বা ডায়াবেটিসের মতো সমস্যা আছে, বা সংবহনতন্ত্রে কোনো সমস্যা আছে তাদের নিয়মিত শরীরের খেয়াল রাখা দরকার। অনেক ক্ষেত্রেই এই উপসর্গগুলিকে উপেক্ষা করাই ডেকে আনতে পারে মহা বিপদ।