জীবন সংগ্রাম

কালাই রুটিতে ২০ বছর ধরে চলে মিনার সংসার

প্রকাশ: ০৭ নভেম্বর ২০১৭     আপডেট: ০৭ নভেম্বর ২০১৭      

সৌরভ হাবিব, রাজশাহী ব্যুরো

পদ্মাপাড়ের শিমলা পার্ক এলাকায় ২০ বছর ধরে কালাই রুটি বিক্রি করেন মিনা বেগম- সমকাল

রাজশাহী সার্কিট হাউসের পাশে পদ্মাপাড়ের শিমলা পার্ক এলাকায় ২০ বছর ধরে কালাই রুটি বিক্রি করছেন মিনা বেগম (৪২)। এ থেকে যে আয় হয় তা দিয়ে অভাব-অনটনে সংসার চলে তার। প্রতিদিন মিনা বেগমের দোকানে কালাই রুটি খান দিনমজুর থেকে শুরু করে অবস্থাপন্ন লোকরা।

সম্প্রতি সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দুই দফায় তার দোকানে রুটি খান। দ্বিতীয়বার মিনার দোকানে কালাই রুটি খেতে এসে তার এক ছেলেকে চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন মন্ত্রী। ছেলে চাকরি পেলে সংসারের অভাব দূর হবে, সেই আশায় এখন বুক বেঁধে আছেন সংগ্রামী এই নারী।

নগরীর শ্রীরামপুর এলাকায় মিনার বাড়ি। স্বামী হাকিবুল ইসলাম। চার সন্তানের অভাব-অনটনের সংসার তাদের। হাকিবুল দীর্ঘদিন ধরে কিডনি ও লিভারের রোগে ভুগছেন। কাজ করতে পারেন না। তাই নিজেই সংসারের হাল ধরেছেন মিনা।
সম্প্রতি সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দুই দফায় মিনার দোকানে কালাই রুটি খেয়ে যান-  সমকাল
তিনি সমকালকে জানান, ২০ বছর আগে ভাপা পিঠা বানিয়ে বিক্রি করতেন। এরপর নগরীর শিমলা পার্ক এলাকায় কালাই রুটি বিক্রি শুরু করেন। এখন কালাই রুটি বিক্রি করেই চলে তার সংসার। কষ্ট করে কোনোমতে দিন পার করেন। অভাবের কারণে চার ছেলের কাউকেই খুব একটা পড়াশোনা করাতে পারেননি।

গত ১ নভেম্বর সকালে মিনা বেগমের দোকানে গিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো কালাই রুটি খান ওবায়দুল কাদের। এর আগে গত ফেব্রুয়ারিতে মিনার দোকানে প্রথম কালাই রুটি খান তিনি।

এ ব্যাপারে মিনা বেগম বলেন, প্রথমবার যখন মন্ত্রী সাহেব দোকানে আসেন, চিনতে পারিনি। সেবার একটা কালাই রুটি খেয়ে দুই হাজার টাকা দিয়েছিলেন। এবার এসেও একটা রুটি খান। টাকা নিতে চাইনি। তারপরও জোর করে দুই হাজার টাকা দিয়ে গেছেন।
পদ্মাপাড়ের শিমলা পার্ক এলাকায় ২০ বছর ধরে কালাই রুটি বিক্রি করেন মিনা বেগম- সমকাল
ওবায়দুল কাদের তার ছেলেকে চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন জানিয়ে মিনা বলেন, 'আমার চার ছেলের মধ্যে বড় ছেলে রুবেল মাইক্রোবাস চালায়। রুবেলের ছোট রাহেন আলী রানার চাকরি ব্যাপারে মন্ত্রীকে খুব করে অনুরোধ করেছি। তিনি চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন। সেই আশায় বুক বেঁধে আছি। গত পরশু মন্ত্রীর পিএসকে ফোন করেছিলাম। তিনি বলেছেন, স্যার যেহেতু আশ্বাস দিয়েছেন, আপনার ছেলে চাকরি পাবে।'

ছেলে চাকরি পেলে অভাবের সংসারে শান্তি ফিরবে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, 'এখন অনেক কষ্ট করে সংসার চালাতে হয়। ছেলেটা চাকরি পেলে সংসারের অভাব কিছুটা দূর হবে। অসুস্থ স্বামীর চিকিৎসা করাতে পারবো।'

বিষয় : কালাই রুটি রাজশাহী

সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি
তারিখ সেহরি ইফতার
২৪ মে '১৯ ৩:৪২ ৬:৪২
২৫ মে '১৯ ৩:৪২ ৬:৪২
*ঢাকা ও আশেপাশের এলাকার জন্য প্রযোজ্য
সূত্র: ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ