ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে নড়াইলের কলেজ শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছনার ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে করা রিটের শুনানির জন্য মঙ্গলবার দিন ধার্য করা হয়েছে। বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তী ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার এই দিন ধার্য করেন।

আদালতে রিট আবেদনটি শুনানির জন্য উপস্থাপন করেন আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী পূর্ণিমা জাহান। তিনিই গত ৩০ জুন হাইকোর্টে এ রিটটি দায়ের করেন।

রিটে স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, শিক্ষা সচিবসহ সংশ্নিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে। এর আগে গত ২৮ জুন স্বপন বিশ্বাসকে লাঞ্ছনার ঘটনায় বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন হাইকোর্টের অন্য একটি বেঞ্চের নজরে নেন আইনজীবী পূর্ণিমা জাহান। পরে হাইকোর্টের ওই বেঞ্চ গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলো পর্যালোচনা করে আইনজীবীকে এ বিষয়ে রিট দায়ের করার পরামর্শ দেন।

গত ১৮ জুন নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন বিশ্বাসকে গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছনার ঘটনা ঘটে। স্থানীয়দের ভাষ্য, নড়াইল সদরের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের এক ছাত্র ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার পরদিন কলেজে গেলে কিছু মুসলমান ছাত্র তাকে ওই পোস্ট মুছে ফেলতে বলে। এ সময় অধ্যক্ষ ওই ছাত্রের ‘পক্ষ নিয়েছেন’ এমন রটনা ছড়িয়ে পড়লে সেখানে উত্তেজনা তৈরি হয়। উত্তেজিত ছাত্ররা অধ্যক্ষ ও দুজন শিক্ষকের মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে স্থানীয়দের সঙ্গে তাদেরও সংঘর্ষ বাঁধে। এ সময় ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে কলেজের কিছু ছাত্র ও স্থানীয়রা পুলিশের উপস্থিতিতে স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরিয়ে দেন। এ ঘটনায় দেশব্যাপী শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন মহলে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে এ ঘটনায় করা মামলায় কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।