মেহেরপুরের গাংনীতে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের ১১ নেতাকর্মীর নামে মামলা দায়ের হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাত আরও ১৫-২০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি মো. শাহিদুজ্জামান শিপু বাদী হয়ে এই মামলা করেন। মামলায় পৌর যুবদলের সভাপতি ও সাবেক প্যানেল মেয়র সাহিদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, মৎস্য খামারের মধ্যে দুটি বোমার বিস্ফোরণ ও তিনটি বোমা উদ্ধারের ঘটনায় এ মামলা দায়ের হয়েছে। 

মামলার আসামিদের মধ্যে আছেন গাংনী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবলু ও তার ভাই জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নাজমুল হক, গাংনী উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক আব্দুল মালেক চপল বিশ্বাস, পৌর যুবদলের সভাপতি সাবেক প্যানেল মেয়র সাহিদুল ইসলাম, গাংনী উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক বিপ্লব হোসেন, পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোস্তফা ডাকু, বানিয়াপুকুর গ্রামের কামরুল ইসলাম, ছাত্রনেতা চৌগাছা গ্রামের ইমন আহমেদ, যুবদল নেতা মনিরুজ্জামান মনি, থানাপাড়ার কাজল আলী ও মহিলা কলেজ পাড়ার সুমন ওরফে এ্যাডাম।

জেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি জাভেদ মাসুদ মিল্টন বলেন, বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে সরকার ক্ষমতা আকড়ে থাকার চেষ্টা করছে। অবিলম্বে মামলাটি প্রত্যাহারের দাবি জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে শহরের মৎস্য খামারের মধ্যে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তিনটি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে। বোমা বিস্ফোরণ ও উদ্ধারের ঘটনায় বিএনপিকে দায়ী করে বিচারের দাবিতে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।