ইথিওপিয়ার প্রতি অবিলম্বে সংঘাত বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস। কলম্বিয়ায় কথা বলার সময় গুতেরেস অবিলম্বে শর্তহীন যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানান।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্র আফ্রিকান দেশটির এই গৃহযুদ্ধের ‘সামরিক কোনো সমাধান নাই’ বলে মন্তব্য করে। এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক আলোচনায় জোর দিয়ে বলে, ইথিওপিয়ার সংঘাতের সামরিক কোনো সমাধান নাই। কূটনীতিই প্রথম, শেষ এবং একমাত্র উপায়। খবর আল-জাজিরার।

বছরব্যাপী চলা এই সংঘাত সম্প্রতি আরও জটিল পরিস্থিতির দিতে যায় এবং দেশটির প্রধানমন্ত্রী, শান্তিতে নোবেল জয়ী আবি আহমেদ টাইগ্রে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার ঘোষণা দেওয়ার পর জাতিসংঘ এই আহ্বান জানাল। 

এদিকে রাজধানী আদ্দিস আবাবার মানুষের সঙ্গে দেশটির অলিম্পিক স্বর্ণজয়ী জাতীয় নায়ক হাইলে গেব্রসেলাসিসহ অনেক হাই প্রোফাইল ক্রীড়াবিদ, সংসদ সদস্য, দলীয় এবং আঞ্চলিক নেতা উত্তরাঞ্চলীয় টাইগ্রে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শামিল হওয়ার প্রতিজ্ঞা করেছেন। 

খেলা থেকে অবসর নেওয়া ৪৮ বছর বয়সী হাইলে বলেন, তিনি বাধ্য হয়ে লড়াইয়ে যোগ দিয়েছেন। কারণ ইথিওপিয়ার অস্তিত্ব হুমকির মুখে ছিল। 

তিনি বলেন, যদি একটি দেশের অস্তিত্ব সংকটে থাকে তখন আপনি কি করবেন? আপনি সবকিছু বাদ দিবেন। আপনাকে কিছুই বেঁধে রাখতে পারবে না। দুঃখিত।   

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের নভেম্বরে দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় টাইগ্রে অঞ্চলের টাইগ্রে পিপলস লিবারেশ ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) সঙ্গে ফেডারেল বাহিনীর সংঘাত শুরু হয়। গত জুলাইয়ে সেই সংঘাত টাইগ্রের পার্শ্ববর্তী দুই অঞ্চলেও ছড়িয়ে পড়ে। এখন বিদ্রোহীরা রাজধানীর দিকে এগিয়ে আসছে।