পদত্যাগ করেছেন জম্মু-কাশ্মীরের প্রথম উপরাজ্যপাল

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

গিরিশ চন্দ্র মুর্মু

গিরিশ চন্দ্র মুর্মু

ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিলের বর্ষপূর্তির দিনেই পদত্যাগ করলেন জম্মু-কাশ্মীরের উপরাজ্যপাল গিরিশ চন্দ্র মুর্মু। বুধবার সন্ধ্যায় তিনি ইস্তফাপত্র কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার তার নয়াদিল্লি ফিরে যাওয়ার কথা। এমন পরিস্থিতিতে জম্মু-কাশ্মীরের নতুন উপরাজ্যপালের সন্ধানও শুরু করে দিয়েছে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার। খবর এনডিটিভি, হিন্দুস্তান টাইমসের।

সম্প্রতি একাধিক বিষয় নিয়ে জম্মু-কাশ্মীরের প্রথম উপরাজ্যপাল গিরিশ চন্দ্রের সঙ্গে কেন্দ্রের বনিবনা হচ্ছিল না। ২০১৮ সাল থেকে জম্মু-কাশ্মীরে ভোট থমকে আছে। রাজ্যের মর্যাদা হারানোর পরে সেখানে প্রথম বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে বর্ষীয়ান এই প্রাক্তন আইএএস অফিসার যে পথ নিয়েছিলেন তা কেন্দ্রের পথের সঙ্গে মিলছিল না। আসন পুনর্বিন্যাস না হওয়া পর্যন্ত বিধানসভা ভোট স্থগিত রাখার পক্ষে ছিলেন গিরিশ চন্দ্র মুর্মু। ভোটের দিনক্ষণ নিয়ে তার বিভিন্ন মন্তব্যেও প্রকাশ্যে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল নির্বাচন কমিশনও।  

তা ছাড়া কাশ্মীরে ফোরজি মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা নিয়েও গিরিশ চন্দ্রের নেতৃত্বাধীন জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসনের সঙ্গে নয়াদিল্লির মতের মিল হচ্ছিল না। নিরাপত্তার কারণে কেন্দ্র বিষয়টি নিয়ে ধীরে চলার পক্ষে থাকলেও হাইস্পিড ইন্টারনেট পরিষেবা চালুর পক্ষে মত দেন জম্মু-কাশ্মীরের উপরাজ্যপাল। যা নিয়ে গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়েছিল। এই সমস্ত কারণে কেন্দ্রের রোষে ৩৭০ ধারা বাতিলের বর্ষপূর্তির দিনেই জম্মু-কাশ্মীরের প্রথম উপরাজ্যপালের ইস্তফার ঘটনা বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের অভিমত।