ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিল ফেসবুক-টুইটার

প্রকাশ: ০৬ আগস্ট ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

ডোনাল্ড ট্রাম্প

ডোনাল্ড ট্রাম্প

পোস্টের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের নীতিমালা লঙ্ঘন করায় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে ফেসবুক ও টুইটার। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারি করোনাভাইরাস নিয়ে ট্রাম্পের একটি পোস্ট সরিয়ে দিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। একই কারণে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে টুইটারও। খবর বিবিসি ও ইউএসএ টুডের।

ফেসবুক ও টুইটারে বুধবার ট্রাম্পের একটি পোস্টে ফক্স নিউজকে তার দেওয়া একটি সাক্ষাৎকার যুক্ত ছিল। ওই সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প দাবি করেছেন, শিশুরা প্রায় করোনাপ্রতিরোধী। শিশুদের মধ্যে কভিড-১৯ প্রতিরোধের ক্ষমতা রয়েছে। 

এরপর এক বিবৃতিতে ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘ওই ভিডিওতে মিথ্যা তথ্য দেওয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, একদল মানুষ কভিড-১৯ থেকে সুরক্ষিত। ফেসবুকে করোনাভাইরাস সম্পর্কিত ভুল তথ্য দেওয়ার ব্যাপারে আমাদের যে নীতিমালা রয়েছে, এটি তার লঙ্ঘন।’

নীতিমালা ভঙ্গ করায় এই প্রথম ট্রাম্পের করোনাভাইরাস সম্পর্কিত কোনো পোস্ট সরিয়ে দিল ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। তবে এর আগেও নীতিমালা ভঙ্গ করায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছিল জনপ্রিয় এ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি। 

অন্যদিকে, এক বিবৃতিতে টুইটার কর্তৃপক্ষ ট্রাম্পকে উদ্দেশ করে বলেছে, ‘আপনি যে টুইটটি করেছেন, সেটি কভিড-১৯ সম্পর্কিত ভুল তথ্যের ব্যাপারে টুইটারের নীতিমালার লঙ্ঘন। এ অ্যাকাউন্ট থেকে পরবর্তী সময়ে কোনো টুইট করতে হলে, আগে এই টুইটটি সরিয়ে ফেলতে হবে।’

বুধবার প্রচারিত ফক্স নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেছিলেন, ‘শিশুদের স্কুলে ফিরে যাওয়া উচিত, কারণ তারা করোনা থেকে অনেকটাই সুরক্ষিত, অথবা ভার্চুয়ালি সুরক্ষিত।’

তবে চিকিৎসকরা বলছেন, শিশুদের মধ্যে করোনার সংক্রমণ ঘটে এবং তারা করোনা ছড়িয়েও দিতে পারে। এ ছাড়া বিভিন্ন দেশের করোনা পরিস্থিতিতে দেখা যাচ্ছে, শিশুরাও করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে এবং অনেক ক্ষেত্রে তাদের মৃত্যুও হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জনস্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকেও যে পরামর্শ দেওয়া হয়, এতে পরিষ্কার বলা আছে, কভিড-১৯-এর ক্ষেত্রে শিশুরা প্রতিরোধী নয়। শিশুরাও কভিড-১৯-এ আক্রান্ত হতে পারে। 

এর আগে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনিয়োপোলিসে পুলিশের হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড নিহত হওয়ার পর বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভকারীদের হুমকি দিয়ে ট্রাম্প বলেছিলেন, ‘লুটপাট চালালে গুলি শুরু হবে।’ টুইটটি সহিংসতায় উসকানিমূলক উল্লেখ করে টুইটার কর্তৃপক্ষ সেটি সতর্কবার্তা দিয়ে ঢেকে দিয়েছিল।